সবার চোখ ইমরানের দিকে, কী করবেন নওয়াজ

10

নিউজ ডেস্ক: কারাবন্দী ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক–ই–ইনসাফের (পিটিআই) সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে জয়ী হলেও সরকার গঠনের দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছে তাদের চেয়ে পিছিয়ে থাকা নওয়াজ শরিফের দল পাকিস্তান মুসলিম লিগ–নওয়াজ (পিএমএল–এন)।

শনিবার পাকিস্তান পিপলস পার্টিসহ (পিপিপি) আরও কয়েকটি দলের সঙ্গে বৈঠক করেছেন পিএমএল–এন–এর নেতারা। সেখানে জোট সরকার গঠনের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

পরে অবশ্য পিপিপির চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি পরে বলেছেন, পিএমএল–এন বা অন্য কারও সঙ্গে জোট সরকার গঠন নিয়ে আনুষ্ঠানিক আলোচনা হয়নি।

আরও পড়ুন: প্রাদেশিক পরিষদে কে এগিয়ে, নওয়াজ না ইমরান সমর্থিতরা?

পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের ২৬৬ আসনের মধ্যে ২৬৫ আসনে ভোট হয়েছে (একটি স্থগিত)। শনিবার রাত পৌনে ১১ টায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত পাকিস্তান নির্বাচন কমিশন (ইসিপি) ঘোষিত ২৫৭ আসনের মধ্যে ১০২ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হয়েছেন যাদের প্রায় সবাই পিটিআই–সর্মথিত।

আরও পড়ুন: সরকার গঠনের পরিকল্পনা, সমর্থকদের যে বার্তা দিল ইমরানের দল

দ্বিতীয় স্থানে থাকা পিএমএল–এন ৭৩ এবং তৃতীয় স্থানে থাকা পিপিপি ৫৪ আসনে জয়ী হয়েছে। অন্যরা পেয়েছে ২৮ আসন।
পাকিস্তানে এককভাবে সরকার গঠনের জন্য জাতীয় পরিষদে অন্তত ১৩৪ আসনে দরকার।

পিএমএল–এন ও পিপিপি বৈঠক

চূড়ান্ত ফলের আভাস পেয়ে নির্বাচনের পরদিন শুক্রবার লাহোরে পিএমএল–এনের সদর দপ্তরে সমর্থকদের উদ্দেশে নওয়াজ বলেছিলেন, জোট সরকার গঠনের আলোচনার জন্য পিপিপি, মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট-পাকিস্তান (এমকিউএম-পি) ও জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম—ফজলের (জেইউআই-এফ) নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন তারা।

গতকালই পাঞ্জাবের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান মহসিন নাকভির বাড়িতে পিপিপির বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি ও তার বাবা পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারির সঙ্গে বৈঠকে বসেন নওয়াজের ছোটভাই শাহবাজ শরিফ।

বৈঠক–সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বৈঠকে দুই দল জোট বেঁধে কেন্দ্রে ও পাঞ্জাব প্রাদেশিক পরিষদে সরকার গড়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

তবে বৈঠকের পর বিলাওয়াল জানিয়েছেন, পিএমএল–এন, পিটিআই বা অন্য কারও সঙ্গে জোট সরকার গঠনের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কোনো আলোচনা হয়নি। কে সরকার গঠন করবে, সে বিষয়ে এখনো কথা বলার সময় আসেনি।

দুই দলের বৈঠকের মধ্যে সেনাপ্রধান আসিম মুনির এক বিবৃতিতে বলেছেন, সব গণতান্ত্রিক শক্তির সমন্বয়ে গঠিত একটি ঐক্যবদ্ধ সরকারই ভালোভাবে দেশের বৈচিত্র্যময় রাজনীতি ও বহুত্ববাদের প্রতিনিধিত্ব করতে পারে।

২৪ ঘণ্টার মধ্যে স্বতন্ত্রদের মঞ্চ

নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে পিটিআই–সমর্থিত প্রার্থীদের জয়ের পর ইমরানের উপদেষ্টা জুলফি বুখারি বলেছেন, ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই তার দলের পক্ষ থেকে একটি মঞ্চ ঘোষণা করা হবে। তার পর সেই মঞ্চে সব স্বতন্ত্র প্রার্থীকে যোগ দিতে বলা হবে।

পাকিস্তানের আইন অনুযায়ী, স্বতন্ত্র প্রার্থীরা নিজেরা মিলে কোনো সরকার গঠন করতে পারেন না। জাতীয় পরিষদে সংরক্ষিত ৭০ আসনে কোনো সদস্যও দিতে পারেন না তারা। সরকারে থাকতে হলেও তাদের কোনো দলে যোগ দিতে হয়। এ জন্য নির্বাচনে জয়ের পর ৭২ ঘণ্টা সময় পান তারা।
গতকাল পিটিআই চেয়ারম্যান গহর আলী খান দাবি করেছেন, প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি সরকার গঠনের জন্য তার দলকে আমন্ত্রণ জানাবেন।
কারণ, জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে তারা সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে জয়ী হয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনে দল–সমর্থিত বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন।

কারচুপির অভিযোগে বিক্ষোভ

নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশে কারচুপির অভিযোগে গতকালও পাকিস্তানের বিভিন্ন অঞ্চলে বিক্ষোভ হয়েছে। করাচি, লাহোর, পেশোয়ার ও কোয়েটা শহরে সমাবেশ করেছেন পিটিআইয়ের নেতা–কর্মী ও সমর্থকেরা। বেলুচিস্তান প্রদেশেও বিক্ষোভ করেছে বিভিন্ন দল।

এদিন উত্তর ওয়াজিরিস্তান শহরে জাতীয় পরিষদের সাবেক সদস্য মোহসিন দাওয়ারের ওপর গুলি চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে তাঁর দল ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট (এনডিএম)।

এদিকে নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশে বিলম্ব নিয়ে গতকালও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে পিটিআই। এর মধ্য দিয়ে কারচুপি হচ্ছে—এমন অভিযোগ এনে দলটির চেয়ারম্যান গহর আলী খান বলেন, ফলাফল প্রকাশে আরও বিলম্ব হলে রোববার বিভিন্ন এলাকায় নির্বাচনী কার্যালয়ের বাইরে বিক্ষোভ করবেন তারা।

সূত্র: যুগান্তর