একসঙ্গে চার ছেলে ও দুই মেয়ের জন্ম দিলেন নারী

0
অস্ত্রোপচার ছাড়াই একসঙ্গে ছয় সন্তানের জন্ম দিয়েছেন পাকিস্তানের এক নারী। নবজাতকদের মধ্যে চারটি ছেলে এবং দুটি মেয়ে। এদের মধ্যে একটি শিশু প্রসবের সময় মারা যায়। খবর এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের। খবরে বলা হয়, করাচির জিন্নাহ পোস্টগ্রাজুয়েট মেডিকেল সেন্টারে ওই শিশুদের জন্ম হয়। একসঙ্গে ছয় নবজাতকের জন্ম দেওয়া ওই নারীর নাম হিনা জাহিদ। তিনি করাচির হাজারা বস্তির বাসিন্দা। স্থানীয়দের কাছে জায়গাটি কালাপুল নামে পরিচিত। চিকিৎসকেরা জানান, হিনা জাহিদের ছয় নবজাতকের মধ্যে একজন প্রসবের সময় মারা যায়। বাকি পাঁচ শিশু এখনো জীবিত। চিকিৎসকেরা বলেন, অস্ত্রোপচার ছাড়াই নবজাতকদের স্বাভাবিক প্রসব হয়েছে। বেঁচে থাকা পাঁচ শিশুর সবাই স্বাস্থ্যবান ও স্বাভাবিক। তারা আরও বলেন, বাচ্চাদের নিউনেন্টাল কেয়ারে রাখার প্রয়োজন। এ কারণে তাদের জাতীয় শিশু স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে স্থানান্তর করা হয়েছে। সেখানে তাদের ইনকিউবেটরে রাখা হবে। এর আগে পাকিস্তানের লাহোরে এক নারী ছয় সন্তানের জন্ম দেন। সে ঘটনা প্রসবের সময় এক মেয়ে শিশু মারা যায়। লাহোরের রবি রোডের বাসিন্দা এবং স্থানীয় কাসিমের স্ত্রীর নবজাতক ছয় সন্তানের মধ্যে ছিল পাঁচটি মেয়ে শিশু ও একটি ছেলে।

নিউজ ডেস্ক: অস্ত্রোপচার ছাড়াই একসঙ্গে ছয় সন্তানের জন্ম দিয়েছেন পাকিস্তানের এক নারী। নবজাতকদের মধ্যে চারটি ছেলে এবং দুটি মেয়ে। এদের মধ্যে একটি শিশু প্রসবের সময় মারা যায়। খবর এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের।

খবরে বলা হয়, করাচির জিন্নাহ পোস্টগ্রাজুয়েট মেডিকেল সেন্টারে ওই শিশুদের জন্ম হয়। একসঙ্গে ছয় নবজাতকের জন্ম দেওয়া ওই নারীর নাম হিনা জাহিদ। তিনি করাচির হাজারা বস্তির বাসিন্দা। স্থানীয়দের কাছে জায়গাটি কালাপুল নামে পরিচিত।

চিকিৎসকেরা জানান, হিনা জাহিদের ছয় নবজাতকের মধ্যে একজন প্রসবের সময় মারা যায়। বাকি পাঁচ শিশু এখনো জীবিত।

চিকিৎসকেরা বলেন, অস্ত্রোপচার ছাড়াই নবজাতকদের স্বাভাবিক প্রসব হয়েছে। বেঁচে থাকা পাঁচ শিশুর সবাই স্বাস্থ্যবান ও স্বাভাবিক।

তারা আরও বলেন, বাচ্চাদের নিউনেন্টাল কেয়ারে রাখার প্রয়োজন। এ কারণে তাদের জাতীয় শিশু স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে স্থানান্তর করা হয়েছে। সেখানে তাদের ইনকিউবেটরে রাখা হবে।

এর আগে পাকিস্তানের লাহোরে এক নারী ছয় সন্তানের জন্ম দেন। সে ঘটনা প্রসবের সময় এক মেয়ে শিশু মারা যায়। লাহোরের রবি রোডের বাসিন্দা এবং স্থানীয় কাসিমের স্ত্রীর নবজাতক ছয় সন্তানের মধ্যে ছিল পাঁচটি মেয়ে শিশু ও একটি ছেলে।

সূত্র: যুগান্তর