বিসিবির সেই প্রস্তাবে রাজি হননি মাহমুদউল্লাহ

6

নিউজ ডেস্ক: মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়ায় অনেকেই বলছেন কার্যত শেষ হয়ে গেল তার টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ার।

মুশফিকুর রহিম টি-টোয়েন্টি ছাড়ার ঘোষণা দিলেও এখনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেননি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। কারণ  বিশ্বকাপটা খেলার আশা ছিল তার। কিন্তু সেই আশা পূরণ হলো না রিয়াদের।

আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে জায়গা হলো না দ্য সাইলেন্ট কিলারের।

মাহমুদউল্লাহকে বাদ দেওয়ার প্রসঙ্গে প্রধান নির্বাচক জানিয়েছেন, টেকনিক্যাল কনসালট্যান্ট শ্রীধরন শ্রীরামের এক বছরের পরিকল্পনায় নেই মাহমুদউল্লাহ।

তবে কী ৩৬ বছর বয়সি এ তারকার  টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ার শেষ হয়ে গেল?

সেই প্রশ্নের পিঠে জানা গেল, অবসরের বিষয়ে নাকি বোর্ডের পক্ষ থেকে একটি প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল মাহমুদউল্লাহকে। কিন্তু সেই প্রস্তাবে রাজি হননি তিনি।

ক্রিকবাজের এক প্রতিবেদনে এসেছে, মাহমুদউল্লাহকে সসম্মানে বিদায় জানাতে চায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। জাতীয় দলে তার অবদানের প্রতি সম্মান রেখে নাকি নিউজিল্যান্ডের মাটিতে আসন্ন ত্রিদেশীয় সিরিজে বিদায়ী ম্যাচের প্রস্তাব দিয়েছিল বিসিবি। কিন্তু মাহমুদউল্লাহ তাতে রাজি হননি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে হঠাৎ ঘোষণা দিয়ে টি-টোয়েন্টি থেকে অবসরের ঘোষণা দেন তামিম ইকবাল আর মুশফিকুর রহিম।  মাহমুদউল্লাহও সেটা করুক – এমনটি চায়নি বিসিবি।  তাই তাকে একটি সিরিজে বিদায়ী ম্যাচ খেলার প্রস্তাব দেওয়া হয়।

কিন্তু সেই প্রস্তাবে সাড়া না দেননি মাহমুদউল্লাহ। তার ইচ্ছা এই ফরম্যাটে আরও দুই বছর খেলার।

ক্রিকবাজকে এ তথ্য দিয়েছে বিসিবির এক কর্মকর্তা।  তিনি বলেছেন, ‘মাহমুদউল্লাহ অবসর নিতে রাজি হয়নি।  সে জানিয়েছে, অবসরের জন্য সে প্রস্তুত নন। বরং আরও দুই বছর খেলতে চায়।  জাতীয় দলে ফেরার চেষ্টা থাকবে তার।’

অর্থাৎ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পরই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)।  এই টুর্নামেন্টে দারুণ পারফর্ম করেই তাকে ফের জাতীয় দলে ফিরতে হবে। কারণ, বিপিএলে পারফর্ম করেই বিশ্বকাপে সুযোগ পেয়েছেন নাজমুল হাসান শান্ত।

সূত্র: যুগান্তর