‘ওষুধের দোকান ২৪ ঘণ্টা খোলা, সিটি করপোরেশন আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়নি’

11
স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, 'রাত ১২টার পর ওষুধ বিক্রি বন্ধ বা হাসপাতালের সময়সীমা কমানোর কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। ফার্মেসি ২৪ ঘণ্টাই খোলা থাকবে।' তিনি আরও বলেন, সিটি করপোরেশন যদি এটা (রাত ১২টার পর বন্ধ) বলে থাকে, তাহলে তাদের সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা করা হবে। এই সিদ্ধান্ত তারা আলোচনা করে নেয়নি।' বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে হাসপাতাল বিষয়ক এক সভা শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। প্রসঙ্গত, ওষুধের দোকান রাত ১২টার পর বন্ধের নির্দেশনা জারি করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা চলছে। বর্তমান সরকার মেডিকেল শিক্ষা ও সেবার মান নিয়ে কাজ করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, মেডিকেল কলেজ শিক্ষা কার্যক্রম আন্তর্জাতিক মানের করা হচ্ছে। সাবজেক্ট হিসেবে রোগীর সঙ্গে কীভাবে ভালো ব্যবহার করা হবে, উন্নত চিকিৎসা দেওয়া যায়, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিষয় যোগ করা হয়েছে।' তিনি বলেন, শিক্ষকের হার অনেক কম। অধ্যাপকের তুলনায় অর্ধেক। এটা পূরণ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা বুঝিয়ে দিয়ে গেছে স্বাস্থ্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ। সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে শিক্ষার্থীদের আসন সংখ্যা বাড়ানো হবে।' তিনি আরও বলেন, 'গবেষণায় গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এর জন্য ১০০ কোটি টাকা বাজেটে ধরা হয়েছে।'

নিউজ ডেস্ক: স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ‘রাত ১২টার পর ওষুধ বিক্রি বন্ধ বা হাসপাতালের সময়সীমা কমানোর কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। ফার্মেসি ২৪ ঘণ্টাই খোলা থাকবে।’

তিনি আরও বলেন, সিটি করপোরেশন যদি এটা (রাত ১২টার পর বন্ধ) বলে থাকে, তাহলে তাদের সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা করা হবে। এই সিদ্ধান্ত তারা আলোচনা করে নেয়নি।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে হাসপাতাল বিষয়ক এক সভা শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

প্রসঙ্গত, ওষুধের দোকান রাত ১২টার পর বন্ধের নির্দেশনা জারি করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা চলছে।
বর্তমান সরকার মেডিকেল শিক্ষা ও সেবার মান নিয়ে কাজ করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, মেডিকেল কলেজ শিক্ষা কার্যক্রম আন্তর্জাতিক মানের করা হচ্ছে। সাবজেক্ট হিসেবে রোগীর সঙ্গে কীভাবে ভালো ব্যবহার করা হবে, উন্নত চিকিৎসা দেওয়া যায়, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিষয় যোগ করা হয়েছে।’
তিনি বলেন, শিক্ষকের হার অনেক কম। অধ্যাপকের তুলনায় অর্ধেক। এটা পূরণ করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা বুঝিয়ে দিয়ে গেছে স্বাস্থ্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ। সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে শিক্ষার্থীদের আসন সংখ্যা বাড়ানো হবে।’
তিনি আরও বলেন, ‘গবেষণায় গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এর জন্য ১০০ কোটি টাকা বাজেটে ধরা হয়েছে।’

সূত্র: যুগান্তর