শ্রীলংকার বন্দর ছেড়ে গেছে চীনের সেই জাহাজ

8
শ্রীলংকার বন্দর ছেড়ে গেছে চীনের সামরিক নজরদারি জাহাজ ইউয়ান ওয়াং-৫। এক সপ্তাহ ধরে ওই বন্দরে অবস্থানের পর সোমবার জাহাজটি পরবর্তী গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে গেছে বলে জানিয়েছে হাম্বানটোটা বন্দর কর্তৃপক্ষ। সম্প্রতি ভারতের আপত্তি সত্ত্বেও হাম্বানটোটা বন্দরে নোঙর করে চীনের সামরিক নজরদারি জাহাজটি। শ্রীলংকার সরকার এবং চায়না মার্চেন্টস পোর্ট হোল্ডিংসের যৌথ উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হাম্বানটোটা ইন্টারন্যাশনাল পোর্ট গ্রুপ জানিয়েছে, ইতোমধ্যে শ্রীলংকার দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দর ছেড়ে গেছে জাহাজটি। তবে জাহাজটির পরবর্তী গন্তব্য সম্পর্কে তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। বিভিন্ন সূত্রের দাবি, চীনের যে জাহাজগুলোর স্যাটেলাইট, রকেট ও আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের সক্ষমতা আছে, তারই একটি ইউয়ান ওয়াং-৫। ভারত আশঙ্কা করছিল, চীন ওই বন্দরকে সামরিকঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করতে পারে। নজিরবিহীন অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে থাকা শ্রীলংকার সরকার চীন ও ভারত-দুই দেশ থেকেই অর্থনৈতিক সহযোগিতা চায়। ভারতের আপত্তির কারণে চীনের জাহাজটিকে হাম্বানটোটা বন্দরে নোঙর করার অনুমতি দিতে দেরি করেছিল তারা। তবে পরবর্তী সময়ে তারা চীনের দাবির পক্ষেই সায় দিয়েছিল। সূত্র: রয়টার্স

নিউজ ডেস্ক: শ্রীলংকার বন্দর ছেড়ে গেছে চীনের সামরিক নজরদারি জাহাজ ইউয়ান ওয়াং-৫। এক সপ্তাহ ধরে ওই বন্দরে অবস্থানের পর সোমবার জাহাজটি পরবর্তী গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে গেছে বলে জানিয়েছে হাম্বানটোটা বন্দর কর্তৃপক্ষ।

সম্প্রতি ভারতের আপত্তি সত্ত্বেও হাম্বানটোটা বন্দরে নোঙর করে চীনের সামরিক নজরদারি জাহাজটি।

শ্রীলংকার সরকার এবং চায়না মার্চেন্টস পোর্ট হোল্ডিংসের যৌথ উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হাম্বানটোটা ইন্টারন্যাশনাল পোর্ট গ্রুপ জানিয়েছে, ইতোমধ্যে শ্রীলংকার দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দর ছেড়ে গেছে জাহাজটি। তবে জাহাজটির পরবর্তী গন্তব্য সম্পর্কে তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

বিভিন্ন সূত্রের দাবি, চীনের যে জাহাজগুলোর স্যাটেলাইট, রকেট ও আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের সক্ষমতা আছে, তারই একটি ইউয়ান ওয়াং-৫। ভারত আশঙ্কা করছিল, চীন ওই বন্দরকে সামরিকঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করতে পারে।

নজিরবিহীন অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে থাকা শ্রীলংকার সরকার চীন ও ভারত-দুই দেশ থেকেই অর্থনৈতিক সহযোগিতা চায়। ভারতের আপত্তির কারণে চীনের জাহাজটিকে হাম্বানটোটা বন্দরে নোঙর করার অনুমতি দিতে দেরি করেছিল তারা। তবে পরবর্তী সময়ে তারা চীনের দাবির পক্ষেই সায় দিয়েছিল।

সূত্র: রয়টার্স

সূত্র: যুগান্তর