সাউথ বাংলা ব্যাংক চেয়ারম্যানের হিসাব তলব

10
বেসরকারি খাতের সাউথ বাংলা অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স (এসবিএসি) ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও থার্মেক্স গ্রুপের মালিক আবদুল কাদির মোল্লার সব লেনদেনের তথ্য তলব করেছে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। যেসব তথ্য চাওয়া হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে-খাতভিত্তিক ব্যাংক ঋণ, আমদানি, রপ্তানি এবং করোনা মোকাবিলাসহ বিভিন্ন সময় নেওয়া প্রণোদনা। সম্প্রতি ব্যাংকগুলোর কাছে পাঠানো চিঠিতে এসব তথ্য চাওয়া হয়। এর বাইরে যদি কোনো ধরনের লেনদেন হয়ে থাকে সেসব তথ্য পাঠাতে বলা হয়। বলা হয়, চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত সব তথ্য একদিনের মধ্যে পাঠাতে হবে। জানতে চাইলে আবদুল কাদির মোল্লা যুগান্তরকে বলেন, যেসব তথ্য চাওয়া হয়েছে, তা বিএফআইইউ-এর রুটিন কাজ। বাংলাদেশের যে কোনো নাগরিকের কাছে তা চাইতে পারে। প্রতিদিন এ সংক্রান্ত অসংখ্য চিঠি ব্যাংকে আসে। চিঠিতে শরিফ হোসেন নামে আরও একজনের তথ্য চাওয়া হয়। ওয়েবসাইটের তথ্য অনুসারে কাদির মোল্লা ১২ প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। সাধারণত অর্থ ও মুদ্রা পাচার নিয়ে কাজ করে বিএফআইইউ। কোনো ব্যক্তির প্রাথমিকভাবে কোনো তথ্য পেলে এরপর ব্যাংকগুলোকে আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠি দিয়ে তথ্য চাওয়া হয়। ডলার সংকট মোকাবিলাসহ মুদ্রা পাচার ঠেকাতে সম্প্রতি সংস্থাটির তৎপরতা বেড়েছে।

নিউজ ডেস্ক: বেসরকারি খাতের সাউথ বাংলা অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স (এসবিএসি) ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও থার্মেক্স গ্রুপের মালিক আবদুল কাদির মোল্লার সব লেনদেনের তথ্য তলব করেছে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)।

যেসব তথ্য চাওয়া হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে-খাতভিত্তিক ব্যাংক ঋণ, আমদানি, রপ্তানি এবং করোনা মোকাবিলাসহ বিভিন্ন সময় নেওয়া প্রণোদনা।

সম্প্রতি ব্যাংকগুলোর কাছে পাঠানো চিঠিতে এসব তথ্য চাওয়া হয়। এর বাইরে যদি কোনো ধরনের লেনদেন হয়ে থাকে সেসব তথ্য পাঠাতে বলা হয়। বলা হয়, চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত সব তথ্য একদিনের মধ্যে পাঠাতে হবে।

জানতে চাইলে আবদুল কাদির মোল্লা যুগান্তরকে বলেন, যেসব তথ্য চাওয়া হয়েছে, তা বিএফআইইউ-এর রুটিন কাজ।

বাংলাদেশের যে কোনো নাগরিকের কাছে তা চাইতে পারে। প্রতিদিন এ সংক্রান্ত অসংখ্য চিঠি ব্যাংকে আসে। চিঠিতে শরিফ হোসেন নামে আরও একজনের তথ্য চাওয়া হয়।

ওয়েবসাইটের তথ্য অনুসারে কাদির মোল্লা ১২ প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। সাধারণত অর্থ ও মুদ্রা পাচার নিয়ে কাজ করে বিএফআইইউ।

কোনো ব্যক্তির প্রাথমিকভাবে কোনো তথ্য পেলে এরপর ব্যাংকগুলোকে আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠি দিয়ে তথ্য চাওয়া হয়। ডলার সংকট মোকাবিলাসহ মুদ্রা পাচার ঠেকাতে সম্প্রতি সংস্থাটির তৎপরতা বেড়েছে।

সূত্র: যুগান্তর