এশিয়া কাপে সুপার ফোরে খেলবে বাংলাদেশ? যা বললেন সাকিব

9
দরজায় কড়া নাড়ছে এশিয়া কাপ। তার আগেই দল গুছিয়ে নিয়েছে ৬ দল। প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে হতে যাচ্ছে। যে কারণে এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই নিয়ে বাড়তি দুশ্চিন্তা বাংলাদেশ শিবিরে। কারণ, কুড়ি ওভারের ফরম্যাটে বরাবরই ম্রিয়মান টাইগাররা। যদিও এশিয়া কাপ নিয়ে বাংলাদেশি সমর্থকদের চাওয়া একটু বেশি। ২০১৬ ও ২০১৮ সালে বাংলাদেশ দুই আসরে ফাইনাল খেলেছিল। এবার কি টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের কারণে পিছিয়ে যাবে বাংলাদেশ? সুপার ফোরের আশা করা বেশি হয়ে যাবে? রোববার মিরপুর শেরেবাংলায় সংবাদ সম্মেলনে মুখোমুখি হয়ে সে প্রশ্নের জবাব দিলেন সাকিব আল হাসান। সুপার ফোর নিশ্চিত করতে পারবেন এমন আশা দিতে চান না সাকিব। বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক বললেন, হ্যা, সুপার ফোরে খেলা উচিত। কিন্তু এখনই সে কথা বলতে চাই না। কারণ, দেখা যায় আমরা যে টার্গেট নিয়ে যাই, তা পূরণ করতে পারি না। তখন বলা হবে, বড় বড় কথা বলে কিন্তু (কাজে প্রকাশ হয় না)। তাই আমাদের টার্গেট, পরিকল্পনা আমাদের মধ্যেই থাক। আমরা ড্রেসিংরুমে জানি কি করা উচিত। দু-একটি শিরোপা জেতাকেই টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের উন্নতি হয়েছে বলতে মানতে নারাজ সাকিব। সাকিব বলেন, টার্গেটটা হলো আমাদের ইমপ্রুভমেন্টের গ্রাফ উপরে নিয়ে যাওয়া। ধরুন আমরা এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠলাম। ফাইনাল জিতলামই। কিন্তু পরে বিশ্বকাপে ভালো খেললাম না। তাহলে তো কিছু হলো না। যেমন ধরেন, ভারত ২০০৭ সালের পর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে জেতেনি। কিন্তু প্রতিবারই তারা ফেভারিটের তালিকায় থাকে। আমি আসলে এভাবে বিষয়টা দেখছি।

নিউজ ডেস্ক: দরজায় কড়া নাড়ছে এশিয়া কাপ। তার আগেই দল গুছিয়ে নিয়েছে ৬ দল। প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে হতে যাচ্ছে। যে কারণে এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই নিয়ে বাড়তি দুশ্চিন্তা বাংলাদেশ শিবিরে।

কারণ, কুড়ি ওভারের ফরম্যাটে বরাবরই ম্রিয়মান টাইগাররা। যদিও এশিয়া কাপ নিয়ে বাংলাদেশি সমর্থকদের চাওয়া একটু বেশি। ২০১৬ ও ২০১৮ সালে বাংলাদেশ দুই আসরে ফাইনাল খেলেছিল।

এবার কি টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের কারণে পিছিয়ে যাবে বাংলাদেশ? সুপার ফোরের আশা করা বেশি হয়ে যাবে?

রোববার মিরপুর শেরেবাংলায় সংবাদ সম্মেলনে মুখোমুখি হয়ে সে প্রশ্নের জবাব দিলেন সাকিব আল হাসান।

সুপার ফোর নিশ্চিত করতে পারবেন এমন আশা দিতে চান না সাকিব।

বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক বললেন, হ্যা, সুপার ফোরে খেলা উচিত।  কিন্তু এখনই সে কথা বলতে চাই না। কারণ, দেখা যায় আমরা যে টার্গেট নিয়ে যাই, তা পূরণ করতে পারি না।  তখন বলা হবে, বড় বড় কথা বলে কিন্তু (কাজে প্রকাশ হয় না)।  তাই আমাদের টার্গেট, পরিকল্পনা আমাদের মধ্যেই থাক।  আমরা ড্রেসিংরুমে জানি কি করা উচিত।

দু-একটি শিরোপা জেতাকেই টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের উন্নতি হয়েছে বলতে মানতে নারাজ সাকিব।

সাকিব বলেন, টার্গেটটা হলো আমাদের ইমপ্রুভমেন্টের গ্রাফ উপরে নিয়ে যাওয়া। ধরুন আমরা এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠলাম।  ফাইনাল জিতলামই। কিন্তু পরে বিশ্বকাপে ভালো খেললাম না। তাহলে তো কিছু হলো না। যেমন ধরেন, ভারত ২০০৭ সালের পর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে জেতেনি। কিন্তু প্রতিবারই তারা ফেভারিটের তালিকায় থাকে। আমি আসলে এভাবে বিষয়টা দেখছি।

 

সূত্র: যুগান্তর