মিশা সওদাগরের ওপর ক্ষোভ ঝাড়লেন অনন্ত-বর্ষা

10
চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাবেক সভাপতি মিশা সওদাগরের ওপর চটেছেন নায়ক অনন্ত জলি। চলচ্চিত্র উন্নয়নে ভূমিকা রাখার কোনো ক্ষমতা মিশা সওদাগরের নেই বলে মন্তব্য করেছেন এই নায়ক। শনিবার ঢাকায় একটি অনুষ্ঠানে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে এ মন্তব্য করেন অনন্ত জলিল। তিনি বলেন, বাংলাদেশের চলচ্চিত্র উন্নয়নে মিশা সওদাগর কিছুই করেননি। তার কোনো ক্ষমতাই নেই। সে সামান্য একজন আর্টিস্ট। বাংলাদেশের চলচ্চিত্র আমি প্রথম ডিজিটালাইড করেছি। সে বরং চলচ্চিত্র যোদ্ধাদের এফডিসি থেকে বের করে দিয়েছে। তিনি বলেন, মিশাকে দিয়ে সিনেমার উন্নতি কোনোভাবে সম্ভব না। উনি কোনো ক্রিয়েটিভ ব্যক্তিও না। অনন্ত জলিলের স্ত্রী অভিনেত্রী বর্ষা বলেন, আমাদের পরবর্তী সিনেমাতে মিশা সওদাগরকে না নেওয়ায় ক্ষোভ থেকে তিনি বাজে মন্তব্য করছেন। এর আগে দিন: দ্য ডে সিনেমা নিয়ে মিশা সওদাগর বলেন, এই সিনেমা দিয়ে ইন্ডাস্ট্রির কোনো লাভ নেই। ১২০ কোটি টাকার সিনেমা আমাদের এখানে বানানো সম্ভব নয়। এত টাকার সিনেমা চলবে কোথায়, টাকাটা উঠবে কীভাবে? কাজেই এটা নিয়ে আমার কোনো মাথাব্যথা নেই। এ ছাড়া এই সিনেমায় প্রফেশনাল কোনো শিল্পী নেই। উনারা সাধারণত শৌখিন শিল্পী। এ সিনেমা দিয়ে আমার ইন্ডাস্ট্রির বিন্দুমাত্র লাভ নেই।

নিউজ ডেস্ক: চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাবেক সভাপতি মিশা সওদাগরের ওপর চটেছেন নায়ক অনন্ত জলি। চলচ্চিত্র উন্নয়নে ভূমিকা রাখার কোনো ক্ষমতা মিশা সওদাগরের নেই বলে মন্তব্য করেছেন এই নায়ক।

শনিবার ঢাকায় একটি অনুষ্ঠানে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে এ মন্তব্য করেন অনন্ত জলিল।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের চলচ্চিত্র উন্নয়নে মিশা সওদাগর কিছুই করেননি। তার কোনো ক্ষমতাই নেই। সে সামান্য একজন আর্টিস্ট। বাংলাদেশের চলচ্চিত্র আমি প্রথম ডিজিটালাইড করেছি। সে বরং চলচ্চিত্র যোদ্ধাদের এফডিসি থেকে বের করে দিয়েছে।

তিনি বলেন, মিশাকে দিয়ে সিনেমার উন্নতি কোনোভাবে সম্ভব না। উনি কোনো ক্রিয়েটিভ ব্যক্তিও না।

অনন্ত জলিলের স্ত্রী অভিনেত্রী বর্ষা বলেন, আমাদের পরবর্তী সিনেমাতে মিশা সওদাগরকে না নেওয়ায় ক্ষোভ থেকে তিনি বাজে মন্তব্য করছেন।

এর আগে দিন: দ্য ডে সিনেমা নিয়ে মিশা সওদাগর বলেন, এই সিনেমা দিয়ে ইন্ডাস্ট্রির কোনো লাভ নেই। ১২০ কোটি টাকার সিনেমা আমাদের এখানে বানানো সম্ভব নয়। এত টাকার সিনেমা চলবে কোথায়, টাকাটা উঠবে কীভাবে? কাজেই এটা নিয়ে আমার কোনো মাথাব্যথা নেই। এ ছাড়া এই সিনেমায় প্রফেশনাল কোনো শিল্পী নেই। উনারা সাধারণত শৌখিন শিল্পী। এ সিনেমা দিয়ে আমার ইন্ডাস্ট্রির বিন্দুমাত্র লাভ নেই।

সূত্র: যুগান্তর