ফেসবুকে সেই পোস্ট মুছলেন সাকিব

8
বাজি ধরার প্রতিষ্ঠান বেটউইনারের সঙ্গে করা ১০ কোটি টাকার চুক্তি শেষতক বাতিল করেছেন সাকিব আল হাসান। মূলত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের কড়া হুশিয়ারিতে চুক্তি বাতিলে বাধ্য হয়েছেন সাকিব। চুক্তি বাতিল ঘোষণার পরও সাকিবের ফেসবুকে ঠিকই দেখা যাচ্ছিল বেটউইনারের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে তার করা পোস্টটি। গত ২ আগস্ট সেই পোস্টটি দিয়েছিলেন সাকিব। যা নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরে তোলপাড় বাংলাদেশের ক্রিকেট। এদিকে সমালোচনার মধ্যে শুক্রবার ভোররাতে দেশে ফিরেছেন সাকিব। আর দেশের মাটিতে পা রাখার কিছু পরেই বির্তকিত সেই ফেসবুক পোস্ট মুছে দিয়েছেন তিনি। সাকিবের নিজের অফিসিয়াল পেজে সেই পোস্টটি আর দেখা যাচ্ছে না। চুক্তি থেকে সরে আসার পর পোস্ট মুছে দিলেও বির্তক পিছু ছাড়ছে না সাকিবের। বাংলাদেশের আইনে যেকোনো ধরনের বাজি, জুয়া নিষিদ্ধ। দেশের আইন যেখানে এমন, সেখানে দেশের একজন শীর্ষ ও অভিজ্ঞ ক্রিকেটার কীভাবে একটি বেটিং প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হলেন, সেটি নিয়ে প্রশ্ন ক্রিকেটপ্রেমিদের। সাকিবের শাস্তি হওয়া উচিত বলে মনে করছেন অনেক। কিন্তু শাস্তির বদলে হয়তো সাকিবকে টি-টোয়েন্টি দলেরও নেতৃত্ব দিতে যাচ্ছে বোর্ড। শাস্তি না দিলেও এমন কাণ্ডের জন্য সাকিবকে জবাবদিহিতা করতে হবে বলে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি। নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন, দেশে ফিরেই আজ বিসিবিতে দেখা করতে হবে সাকিবকে। সে সময় জুয়াড়ি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি কেন করেছেন, তার ব্যাখা জানতে চাইবেন তিনি। সাকিব অবশ্য সে জবাব দেওয়ার আগেই এক ধাপ এগিয়ে রাখলেন নিজেকে। আজ দুপুরে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গে বৈঠকে বসার কথা আছে তার। এর আগেই এই পোস্ট মুছলেন বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক।

নিউজ ডেস্ক: বাজি ধরার প্রতিষ্ঠান বেটউইনারের সঙ্গে করা ১০ কোটি টাকার চুক্তি শেষতক বাতিল করেছেন সাকিব আল হাসান।

মূলত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের কড়া হুশিয়ারিতে চুক্তি বাতিলে বাধ্য হয়েছেন সাকিব।

চুক্তি বাতিল ঘোষণার পরও সাকিবের ফেসবুকে ঠিকই দেখা যাচ্ছিল বেটউইনারের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে তার করা পোস্টটি। গত ২ আগস্ট সেই পোস্টটি দিয়েছিলেন সাকিব।  যা নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরে তোলপাড় বাংলাদেশের ক্রিকেট।

এদিকে সমালোচনার মধ্যে শুক্রবার ভোররাতে দেশে ফিরেছেন সাকিব।  আর দেশের মাটিতে পা রাখার কিছু পরেই বির্তকিত সেই ফেসবুক পোস্ট মুছে দিয়েছেন তিনি।

সাকিবের নিজের অফিসিয়াল পেজে সেই পোস্টটি আর দেখা যাচ্ছে না।

চুক্তি থেকে সরে আসার পর পোস্ট মুছে দিলেও বির্তক পিছু ছাড়ছে না সাকিবের।

বাংলাদেশের আইনে যেকোনো ধরনের বাজি, জুয়া নিষিদ্ধ। দেশের আইন যেখানে এমন, সেখানে দেশের একজন শীর্ষ ও অভিজ্ঞ ক্রিকেটার কীভাবে একটি বেটিং প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হলেন, সেটি নিয়ে প্রশ্ন ক্রিকেটপ্রেমিদের।

সাকিবের শাস্তি হওয়া উচিত বলে মনে করছেন অনেক।  কিন্তু শাস্তির বদলে হয়তো সাকিবকে টি-টোয়েন্টি দলেরও নেতৃত্ব দিতে যাচ্ছে বোর্ড।

শাস্তি না দিলেও এমন কাণ্ডের জন্য সাকিবকে জবাবদিহিতা করতে হবে বলে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি।

নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন, দেশে ফিরেই আজ বিসিবিতে দেখা করতে হবে সাকিবকে। সে সময় জুয়াড়ি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি কেন করেছেন, তার ব্যাখা জানতে চাইবেন তিনি।

সাকিব অবশ্য সে জবাব দেওয়ার আগেই এক ধাপ এগিয়ে রাখলেন নিজেকে। আজ দুপুরে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গে বৈঠকে বসার কথা আছে তার। এর আগেই এই পোস্ট মুছলেন বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক।

সূত্র: যুগান্তর