রাশিয়ার বিরুদ্ধে সামরিক কৌশল ফাঁস, ক্ষুব্ধ জেলেনস্কি

4
রুশ বাহিনীকে মোকাবিলায় নিজেদের সামরিক কৌশল ফাঁস হওয়া নিয়ে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। বৃহস্পতিবার সামরিক কৌশল ফাঁসে জড়িত কর্মকর্তাদের চিহ্নিত করতে তদন্ত শুরু করেছে দেশটি। সেই সঙ্গে ভবিষ্যতে যাতে নিজেদের সামরিক কৌশল প্রকাশ না পায় এ বিষয়ে কর্মকর্তাদের সতর্ক থাকার কড়া নির্দেশ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি। খবর রয়টার্সের। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাশিয়ার বিরুদ্ধে কিয়েভের সামরিক কৌশল সম্পর্কে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করতে বৃহস্পতিবার কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি। সামরিক কৌশল নিয়ে বাইরে মন্তব্য করা ‘স্পষ্টতই দায়িত্বজ্ঞানহীন’ বলেও উল্লেখ করেছেন পূর্ব ইউরোপের এ দেশটির প্রেসিডেন্ট। রয়টার্সের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, মঙ্গলবার রুশ অধিকৃত ক্রিমিয়ায় একটি রাশিয়ান বিমানঘাঁটিতে বিস্ফোরণের পর মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমস এবং ওয়াশিংটন পোস্ট অজ্ঞাতপরিচয় কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে জানায়, ইউক্রেনীয় বাহিনী এ বিস্ফোরণের পেছনে রয়েছে। অন্যদিকে ইউক্রেন এই বিস্ফোরণের পেছনে জড়িত কিনা তা বলতে অস্বীকৃতি জানায় কিয়েভের সরকার। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দেওয়া ভাষণে প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি বলেন, ‘যুদ্ধের সময় অবশ্যই অহংকার ও উচ্চস্বরে বিবৃতি দেওয়া যাবে না। আপনি আমাদের প্রতিরক্ষা পরিকল্পনা সম্পর্কে যত কম তথ্য প্রকাশ করবেন, সেই প্রতিরক্ষা পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়নের জন্য এটি তত ভালো হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আপনি যদি উচ্চস্বরে কোনো শিরোনাম তৈরি করতে চান, তবে সেটি এক জিনিস, যা স্পষ্টতই দায়িত্বজ্ঞানহীন। আর আপনি যদি ইউক্রেনের জন্য জয় চান, তবে এটি অন্য জিনিস। প্রতিরক্ষা বা পাল্টা হামলার বিষয়ে আমাদের রাষ্ট্রের পরিকল্পনা সম্পর্কে আপনি যে কথা বলেন, তার প্রতি আপনার দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন হওয়া উচিত।’ ফেসবুকে ইউক্রেনের উপপ্রতিরক্ষামন্ত্রী হান্না মালিয়ার লিখেছেন, ‘সামরিক কৌশলের তথ্য এই ভাবে ফাঁস করা হলে তা ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনীর পরিকল্পনাকে ব্যাহত করে। কারণ এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে শত্রুরা তাদের কর্মকাণ্ড সামঞ্জস্য করে এবং আমাদের বিরুদ্ধে সেই তথ্য ব্যবহার করে।’

নিউজ ডেস্ক: রুশ বাহিনীকে মোকাবিলায় নিজেদের সামরিক কৌশল ফাঁস হওয়া নিয়ে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। বৃহস্পতিবার সামরিক কৌশল ফাঁসে জড়িত কর্মকর্তাদের চিহ্নিত করতে তদন্ত শুরু করেছে দেশটি।

সেই সঙ্গে ভবিষ্যতে যাতে নিজেদের সামরিক কৌশল প্রকাশ না পায় এ বিষয়ে কর্মকর্তাদের সতর্ক থাকার কড়া নির্দেশ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি। খবর রয়টার্সের।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাশিয়ার বিরুদ্ধে কিয়েভের সামরিক কৌশল সম্পর্কে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করতে বৃহস্পতিবার কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি। সামরিক কৌশল নিয়ে বাইরে মন্তব্য করা ‘স্পষ্টতই দায়িত্বজ্ঞানহীন’ বলেও উল্লেখ করেছেন পূর্ব ইউরোপের এ দেশটির প্রেসিডেন্ট।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, মঙ্গলবার রুশ অধিকৃত ক্রিমিয়ায় একটি রাশিয়ান বিমানঘাঁটিতে বিস্ফোরণের পর মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমস এবং ওয়াশিংটন পোস্ট অজ্ঞাতপরিচয় কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে জানায়, ইউক্রেনীয় বাহিনী এ বিস্ফোরণের পেছনে রয়েছে। অন্যদিকে ইউক্রেন এই বিস্ফোরণের পেছনে জড়িত কিনা তা বলতে অস্বীকৃতি জানায় কিয়েভের সরকার।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দেওয়া ভাষণে প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি বলেন, ‘যুদ্ধের সময় অবশ্যই অহংকার ও উচ্চস্বরে বিবৃতি দেওয়া যাবে না। আপনি আমাদের প্রতিরক্ষা পরিকল্পনা সম্পর্কে যত কম তথ্য প্রকাশ করবেন, সেই প্রতিরক্ষা পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়নের জন্য এটি তত ভালো হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনি যদি উচ্চস্বরে কোনো শিরোনাম তৈরি করতে চান, তবে সেটি এক জিনিস, যা স্পষ্টতই দায়িত্বজ্ঞানহীন। আর আপনি যদি ইউক্রেনের জন্য জয় চান, তবে এটি অন্য জিনিস। প্রতিরক্ষা বা পাল্টা হামলার বিষয়ে আমাদের রাষ্ট্রের পরিকল্পনা সম্পর্কে আপনি যে কথা বলেন, তার প্রতি আপনার দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন হওয়া উচিত।’

ফেসবুকে ইউক্রেনের উপপ্রতিরক্ষামন্ত্রী হান্না মালিয়ার লিখেছেন, ‘সামরিক কৌশলের তথ্য এই ভাবে ফাঁস করা হলে তা ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনীর পরিকল্পনাকে ব্যাহত করে। কারণ এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে শত্রুরা তাদের কর্মকাণ্ড সামঞ্জস্য করে এবং আমাদের বিরুদ্ধে সেই তথ্য ব্যবহার করে।’

সূত্র: যুগান্তর