নারীর খোয়া যাওয়া চিকিৎসার টাকা উদ্ধার করে দিলেন ওসি

9
নোয়াখালীর কবিরহাট থানার পুলিশ বিকাশে খোয়া যাওয়া শারীরিক প্রতিবন্ধী এক নারীর চিকিৎসার টাকা উদ্ধার করে ফেরত দিয়েছেন। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কবিরহাট থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম উদ্ধারকৃত টাকা ওই নারীর হাতে হস্তান্তর করেন। শারীরিক প্রতিবন্ধী ওই নারীর নাম নাছরিন আক্তার। তিনি কবিরহাট পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের ইন্দ্রপুর গ্রামের মো. গোলাম মাওলার মেয়ে। পুলিশ জানায়, শারীরিক প্রতিবন্ধী নাছরিন আক্তারের চিকিৎসার জন্য তার ভাই সাইফুল ইসলাম কিছু দিন আগে কুয়েত থেকে বিকাশের মাধ্যমে ২০ হাজার টাকা তার মোবাইল ফোন নম্বরে পাঠায়। টাকাগুলো পাঠানোর সময় ভুল করে নাটোরের অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির বিকাশ নাম্বারে চলে যায়। টাকা উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে এ ঘটনায় ভুক্তভোগী নারী ২ আগস্ট বিকালে কবিরহাট থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। পুলিশ জিডির সূত্র ধরে কবিরহাট থানার ওসির তত্ত্বাবধানে ৭ দিনের মধ্যে প্রযুক্তির সহায়তায় টাকা উদ্ধার করে ওই নারীকে বুঝিয়ে দেয় পুলিশ। এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাছরিন আক্তার বলেন, টাকা ফেরত পেয়ে তিনি খুশি। এ ভাবে কাজ করে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো পুলিশের জন্য খুব সম্মানের। ওসি আন্তরিকভাবে কাজ করেছেন। আমি সংশ্লিষ্ট পুলিশ প্রশাসনের সবার জন্য দোয়া করি। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, মানবিক বিবেচনায় দায়িত্ব নিয়ে কাজ করেছি।

নিউজ ডেস্ক: নোয়াখালীর কবিরহাট থানার পুলিশ বিকাশে খোয়া যাওয়া শারীরিক প্রতিবন্ধী এক নারীর চিকিৎসার টাকা উদ্ধার করে ফেরত দিয়েছেন। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কবিরহাট থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম উদ্ধারকৃত টাকা ওই নারীর হাতে হস্তান্তর করেন।

শারীরিক প্রতিবন্ধী ওই নারীর নাম নাছরিন আক্তার। তিনি কবিরহাট পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের ইন্দ্রপুর গ্রামের মো. গোলাম মাওলার মেয়ে।

পুলিশ জানায়, শারীরিক প্রতিবন্ধী নাছরিন আক্তারের চিকিৎসার জন্য তার ভাই সাইফুল ইসলাম কিছু দিন আগে কুয়েত থেকে বিকাশের মাধ্যমে ২০ হাজার টাকা তার মোবাইল ফোন নম্বরে পাঠায়। টাকাগুলো পাঠানোর সময় ভুল করে নাটোরের অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির বিকাশ নাম্বারে চলে যায়। টাকা উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে এ ঘটনায় ভুক্তভোগী নারী ২ আগস্ট বিকালে কবিরহাট থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

পুলিশ জিডির সূত্র ধরে কবিরহাট থানার ওসির তত্ত্বাবধানে ৭ দিনের মধ্যে প্রযুক্তির সহায়তায় টাকা উদ্ধার করে ওই নারীকে বুঝিয়ে দেয় পুলিশ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাছরিন আক্তার বলেন, টাকা ফেরত পেয়ে তিনি খুশি। এ ভাবে কাজ করে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো পুলিশের জন্য খুব সম্মানের। ওসি আন্তরিকভাবে কাজ করেছেন। আমি সংশ্লিষ্ট পুলিশ প্রশাসনের সবার জন্য দোয়া করি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, মানবিক বিবেচনায় দায়িত্ব নিয়ে কাজ করেছি।

সূত্র: যুগান্তর