সিনেমার নামকরণে ‘দ্য’ ব্যবহারের ব্যাখ্যা দিলেন অনন্ত

15
এবারের ঈদে মুক্তিপ্রাপ্ত তিনটি সিনেমার মধ্যে অন্যতম অনন্ত জলিলের দিন: দ্য ডে। সিনেমাটিকে ঢাকাই ছবির ইতিহাসের সর্বোচ্চ বাজেটের বলা হচ্ছে। সিনেমাটি ইরান-বাংলাদেশ যৌথ প্রযোজনার একটি অ্যাকশন থ্রিলার চলচ্চিত্র। এটি পরিচালনা করছেন ইরানি পরিচালক মোর্তেজা অতাশজমজম। সিনেমার বেশিরভাগ শুটিং হয়েছে ইরানে, তুরস্কে ও আফগানিস্তানে। মুক্তির পর সিনেমাটি দারুণ সাড়া ফেলেছে। এখনো কোনো কোনো প্রেক্ষাগৃহে হাউজফুল চলছে। এমন সফলতার মধ্যেও সিনেমার নামকরণ নিয়ে ট্রল, মিম চলেছে। অনন্ত জলিলের সিনেমায় কেন বাংলার পাশাপাশি ইংরেজি অর্থটি ব্যবহৃত হয় এবং ‘দ্য’ ব্যবহার হয় তা নিয়ে চলেছে তুমুল আলোচনা-সমালোচনা। কেন এমনটি করেন এবার সে জবাব দিয়েছেন অনন্ত জলিল নিজেই। সম্প্রতি এক গণমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ ব্যবসায়ী, প্রযোজক ও অভিনেতা জানান, বিশ্বব্যাপী পরিচিতি দিতেই নিজের সিনেমায় আন্তর্জাতিক ভাষা ইংরেজির ব্যবহার করেন। তিনি বলেন, দিন তো একটি শব্দ। আমরা তো অর্ধেক বলতে পারি না। ইংলিশ নামটা রাখার কারণ, বিভিন্ন দেশে সেন্সর হবে ছবিটা। এখন অন্য ভাষার মানুষেরা কীভাবে বুঝবে ছবির নামের অর্থ। বাংলা ছবির নামের অর্থ অন্য ভাষাভাষিদের বুঝাতেই তো মাথা নষ্ট হওয়ার উপক্রম। সব ছবিতেই যে ‘দ্য’ ব্যবহার করছেন তেমনটি কিন্তু নয়। উপযুক্ত স্থানেই ইংরেজির এই গ্রামাটিক্যাল আর্টিক্যালটি ব্যবহার করেছেন বলে মনে করিয়ে দিলেন অনন্ত। এ অভিনেতা বলেন, আমি যখন আমার প্রথম ছবিটির নাম রাখি খোঁজ তখন (এর ইংলিশ টার্ম) দ্য সার্চ দিই। আর যে ছবির নাম ইংরেজিতে সেখানে তো আর বাংলা নাম রাখতে হয়নি (দ্য এর ব্যবহারও হয়নি)। যেমন- মোস্ট ওয়েলকাম, মোস্ট ওয়েলকাম টু, দ্য স্পিড। আবার আমি ছবির নাম দিলাম - হৃদয় ভাঙা ঢেউ। তখন ইংলিশে ট্যাগ দিলাম - হার্ট ব্রেকিং ব্লো। তখন কিন্তু আমাকে ‘দ্য’ ব্যবহার করতে হয়নি। তখন ‘দ্’ ব্যবহার করলে বিষয়টি হাস্যকর হয়ে যেত। এরপর সমালোচনার বিষয়ে এ তারকা বলেন, দ্য এর ব্যবহার হলিউড, বলিউডে অনেক করা হয়। কিন্তু তাদের নাম নিয়ে তো সমালোচনা হয় না।

নিউজ ডেস্ক: এবারের ঈদে মুক্তিপ্রাপ্ত তিনটি সিনেমার মধ্যে অন্যতম অনন্ত জলিলের দিন: দ্য ডে। সিনেমাটিকে ঢাকাই ছবির ইতিহাসের সর্বোচ্চ বাজেটের বলা হচ্ছে।

সিনেমাটি ইরান-বাংলাদেশ যৌথ প্রযোজনার একটি অ্যাকশন থ্রিলার চলচ্চিত্র। এটি পরিচালনা করছেন ইরানি পরিচালক মোর্তেজা অতাশজমজম। সিনেমার বেশিরভাগ শুটিং হয়েছে ইরানে, তুরস্কে ও আফগানিস্তানে।

মুক্তির পর সিনেমাটি দারুণ সাড়া ফেলেছে। এখনো কোনো কোনো প্রেক্ষাগৃহে হাউজফুল চলছে।

এমন সফলতার মধ্যেও সিনেমার নামকরণ নিয়ে ট্রল, মিম চলেছে। অনন্ত জলিলের সিনেমায় কেন বাংলার পাশাপাশি ইংরেজি অর্থটি ব্যবহৃত হয় এবং ‘দ্য’ ব্যবহার হয় তা নিয়ে চলেছে তুমুল আলোচনা-সমালোচনা।

কেন এমনটি করেন এবার সে জবাব দিয়েছেন অনন্ত জলিল নিজেই।

সম্প্রতি এক গণমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ ব্যবসায়ী, প্রযোজক ও অভিনেতা জানান, বিশ্বব্যাপী পরিচিতি দিতেই নিজের সিনেমায় আন্তর্জাতিক ভাষা ইংরেজির ব্যবহার করেন।

তিনি বলেন, দিন তো একটি শব্দ। আমরা তো অর্ধেক বলতে পারি না। ইংলিশ নামটা রাখার কারণ, বিভিন্ন দেশে সেন্সর হবে ছবিটা। এখন অন্য ভাষার মানুষেরা কীভাবে বুঝবে ছবির নামের অর্থ। বাংলা ছবির নামের অর্থ অন্য ভাষাভাষিদের বুঝাতেই তো মাথা নষ্ট হওয়ার উপক্রম।

সব ছবিতেই যে ‘দ্য’ ব্যবহার করছেন তেমনটি কিন্তু নয়। উপযুক্ত স্থানেই ইংরেজির এই গ্রামাটিক্যাল আর্টিক্যালটি ব্যবহার করেছেন বলে মনে করিয়ে দিলেন অনন্ত।

এ অভিনেতা বলেন, আমি যখন আমার প্রথম ছবিটির নাম রাখি খোঁজ তখন (এর ইংলিশ টার্ম) দ্য সার্চ দিই। আর যে ছবির নাম ইংরেজিতে সেখানে তো আর বাংলা নাম রাখতে হয়নি (দ্য এর ব্যবহারও হয়নি)। যেমন- মোস্ট ওয়েলকাম, মোস্ট ওয়েলকাম টু, দ্য স্পিড। আবার আমি ছবির নাম দিলাম  – হৃদয় ভাঙা ঢেউ। তখন ইংলিশে ট্যাগ দিলাম – হার্ট ব্রেকিং ব্লো। তখন কিন্তু আমাকে ‘দ্য’ ব্যবহার করতে হয়নি। তখন ‘দ্’ ব্যবহার করলে বিষয়টি হাস্যকর হয়ে যেত।

এরপর সমালোচনার বিষয়ে এ তারকা বলেন, দ্য এর ব্যবহার হলিউড, বলিউডে অনেক করা হয়। কিন্তু তাদের নাম নিয়ে তো সমালোচনা হয় না।

সূত্র: যুগান্তর