মওদুদি ও সাইয়েদ কুতুবের লেখা বাদ দিল আলীগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটি

9
পাকিস্তানের লেখক ও জামায়াতে ইসলামীর প্রতিষ্ঠাতা আবুল আ’লা মওদুদি ও মিসরের লেখক সাইয়েদ কুতুবের লেখা সিলেবাস থেকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়। এ দুই লেখকের লেখায় কিছু ‘আপত্তিকর’ বিষয় আছে— এমন অভিযোগ পাওয়ার পরেই বিশ্ববিদ্যালয়টির ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সিলেবাস থেকে তাদের লেখা বাদ দেওয়া হয়েছে বলে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবরে বলা হয়েছে। খবরে বলা হয়, ভারতের ২৫ সমাজকর্মী ও শিক্ষাবিদ দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে একটি খোলা চিঠি পাঠিয়ে কয়েকটি মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলেবাস নিয়ে আপত্তির কথা জানান। চিঠিতে আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়, দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয় ও হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘জিহাদ সম্পর্কিত আপত্তিকর’ বিষয় পড়ানোর অভিযোগ করেন তারা। এ ছাড়া আবুল আ’লা মওদুদির লেখা বই শিক্ষার্থীদের না পড়ানোর আহ্বান জানান। এর পরই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটি। আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা সাফি কিদওয়াই বলেন, পাকিস্তানের আবু আল-আ’লা আল-মওদুদি এবং মিসরের সাইয়েদ কুতুবের লেখা সিলেবাস থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের একজন অধ্যাপক বলেন, ম্যানেজমেন্ট বোর্ড দুই লেখকের লেখা সব বই পাঠ্যক্রম থেকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আমাদের বলা হয়েছে যে বিশ্ববিদ্যালয়ে বিতর্ক এড়াতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানায়নি যে যা পড়ানো হচ্ছে তার কোনো অংশ আপত্তিকর বা দেশবিরোধী। আমাদের শুধু দুই লেখকের লেখা সরিয়ে ফেলতে বলা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে মাস্টার্সের জন্য ঐচ্ছিক প্রশ্নপত্র হিসেবে দুই লেখকের লেখা পড়ানো হতো।

নিউজ ডেস্ক: পাকিস্তানের লেখক ও জামায়াতে ইসলামীর প্রতিষ্ঠাতা আবুল আ’লা মওদুদি ও মিসরের লেখক সাইয়েদ কুতুবের লেখা সিলেবাস থেকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়।

এ দুই লেখকের লেখায় কিছু ‘আপত্তিকর’ বিষয় আছে— এমন অভিযোগ পাওয়ার পরেই বিশ্ববিদ্যালয়টির ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সিলেবাস থেকে তাদের লেখা বাদ দেওয়া হয়েছে বলে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবরে বলা হয়েছে।

খবরে বলা হয়, ভারতের ২৫ সমাজকর্মী ও শিক্ষাবিদ দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে একটি খোলা চিঠি পাঠিয়ে কয়েকটি মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলেবাস নিয়ে আপত্তির কথা জানান।

চিঠিতে আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়, দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয় ও হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘জিহাদ সম্পর্কিত আপত্তিকর’ বিষয় পড়ানোর অভিযোগ করেন তারা। এ ছাড়া আবুল আ’লা মওদুদির লেখা বই শিক্ষার্থীদের না পড়ানোর আহ্বান জানান। এর পরই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটি।

আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা সাফি কিদওয়াই বলেন, পাকিস্তানের আবু আল-আ’লা আল-মওদুদি এবং মিসরের সাইয়েদ কুতুবের লেখা সিলেবাস থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের একজন অধ্যাপক বলেন, ম্যানেজমেন্ট বোর্ড দুই লেখকের লেখা সব বই পাঠ্যক্রম থেকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আমাদের বলা হয়েছে যে বিশ্ববিদ্যালয়ে বিতর্ক এড়াতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানায়নি যে যা পড়ানো হচ্ছে তার কোনো অংশ আপত্তিকর বা দেশবিরোধী। আমাদের শুধু দুই লেখকের লেখা সরিয়ে ফেলতে বলা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে মাস্টার্সের জন্য ঐচ্ছিক প্রশ্নপত্র হিসেবে দুই লেখকের লেখা পড়ানো হতো।

সূত্র: যুগান্তর