রাসুল (সা.)-এর মুখে ভালো মানুষের গুণাবলি

1

মুফতি মুহাম্মদ মর্তুজা: মানুষের ভালো হওয়ার সংজ্ঞা আপেক্ষিক। একেকজনের দৃষ্টিতে একেক রকমের মানুষ ভালো। আজ আমরা আলোচনা করব এমন কিছু চারিত্রিক গুণ নিয়ে, যেগুলো কারো মাঝে হাদিসের ভাষায় তাদের ভালো মানুষ বলা হয়েছে। যেহেতু এটি অতিসংক্ষিপ্ত একটি প্রবন্ধ, এখানে সব গুণাবলি একত্র করা সম্ভব নয়, তবু বিশেষ বিশেষ গুণগুলো সংক্ষিপ্ত আকারে তুলে ধরার চেষ্টা করব ইনশাআল্লাহ।

প্রথম কাতারে নামাজ আদায় : যারা ইখলাস ও গুরুত্বের সহিত প্রথম কাতারে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করে, হাদিসের ভাষায় তাদের উত্তম মানুষ বলা হয়েছে। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, পুরুষদের সর্বোত্তম কাতার হচ্ছে প্রথমটি আর সবচেয়ে অনুত্তম হচ্ছে শেষের কাতার। (আবু দাউদ, হাদিস : ৬৭৮)

ইরবাজ ইবনে সারিয়া (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) থেকে বর্ণনা করেন যে তিনি প্রথম কাতারের জন্য তিনবার (রহমত ও মাগফিরাতের) দোয়া করতেন, তারপর দ্বিতীয় কাতারের জন্য একবার। (নাসায়ি, হাদিস : ৮১৭)

বিনয়ীভাবে নামাজ আদায় : যারা নামাজে দাঁড়ানোর সময় অত্যন্ত বিনয়ের সহিত দাঁড়ায়, হাদিসের ভাষায় তাদের ভালো মানুষ বলা হয়েছে। ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তোমাদের মধ্যকার উত্কৃষ্ট হচ্ছে ওই সব লোক, যারা নামাজের মধ্যে নিজেদের কাঁধ বেশি নরম করে দেয়। (আবু দাউদ, হাদিস : ৬৭২)

কোরআন শিখা ও শেখানো : উসমান (রা.) সূত্রে নবী (সা.) বলেন, তোমাদের মধ্যে ওই ব্যক্তি সবচেয়ে উত্তম যে  কোরআন শেখে এবং অন্যকে শেখায়। (বুখারি, হাদিস : ৫০২৭)

দান করা : যারা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য বেশি বেশি দান-সদকা করে, তাদের হাদিসের ভাষায় ভালো মানুষ বলা হয়েছে। আবদুল্লাহ ইবনে উমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) সদকা এবং (কারো কাছে কিছু না) চাওয়া থেকে আত্মরক্ষার বিষয়ে আলোচনা প্রসঙ্গে বলেন, ওপরের হাত নিচের হাত থেকে উত্তম। ওপরের হাত হলো (দাতার) ব্যয়কারীর হাত, আর নিচের হাত হলো প্রার্থীর (গ্রহীতার) হাত। (নাসায়ি, হাদিস : ২৫৩৩)

আগে সালাম দেওয়া : যারা পরিচিত অপরিচিত সবাইকে সালাম করে হাদিসের ভাষায় তাদের ভালো মানুষ বলা হয়েছে। আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) থেকে বর্ণিত, এক ব্যক্তি রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে জিজ্ঞাসা করল, কোন ইসলাম (অর্থাৎ ইসলামের কোন কর্ম) ভালো? তিনি বলেন, খাদ্য দান করা, পরিচিত অপরিচিত সবাইকে সালাম করা। (নাসায়ি, হাদিস : ৫০০০)

সচ্চরিত্রবান ব্যক্তি : আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী (সা.) অশ্লীল ভাষী ও অসদাচরণের অধিকারী ছিলেন না। তিনি বলতেন, তোমাদের মধ্যে সেই ব্যক্তিই সর্বোত্তম, যে নৈতিকতায় সর্বোত্তম। (বুখারি, হাদিস : ৩৫৫৯)

অনিষ্টতা থেকে অন্যরা নিরাপদ : আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) বলেছেন, মুসলিম (প্রকৃত) সেই, যার মুখ ও হাত থেকে মুসলমানরা নিরাপদ থাকে। আর (প্রকৃত) মুহাজির সেই, আল্লাহ যা নিষেধ করেছেন তা যে পরিত্যাগ করে। (বুখারি, হাদিস : ৬৪৮৪)

পরিবারের কাছে উত্তম : অনেক মানুষ দুনিয়ার সবার সঙ্গে ভালো ব্যবহার করে; কিন্তু নিজের পরিবারের খোঁজ রাখে না বা পরিবারের মানুষের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করে না, সে ইসলামের দৃষ্টিতে ভালো মানুষ নয়; বরং ইলসালের দৃষ্টিতে ভালো মানুষ হতে পরিবারের সঙ্গে একইভাবে ভালো ব্যবহার করতে হবে। ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) বলেন, তোমাদের মধ্যে সেই ব্যক্তি উত্তম যে নিজের পরিবারের কাছে উত্তম। আর আমি তোমাদের চেয়ে আমার পরিবারের কাছে অধিক উত্তম। (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ১৯৭৭)

অন্য হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, আবু হুরাইরা (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তোমাদের মধ্যে ঈমানে পরিপূর্ণ মুসলমান হচ্ছে সর্বোত্তম চরিত্রের অধিকারী ব্যক্তি। যেসব লোক নিজেদের স্ত্রীদের কাছে উত্তম, তারাই তোমাদের মধ্যে অতি উত্তম। (তিরমিজি, হাদিস : ১১৬২)

লেনদেনে স্বচ্ছ থাকা : ইসলাম লেনদেনে স্বচ্ছতাকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দিয়েছে। একটা মানুষ সারা জীবন ইবাদত করল; কিন্তু তার লেনদেন ভালো না, সে মানুষের ঋণ পরিশোধ করে না, তাহলে সে ইসলামের দৃষ্টিতে ভালো মানুষ নয়। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, একজন লোক নবী করিম (সা.)-এর কাছে তার (প্রাপ্য) উটের তাগাদা দিতে আসে। আল্লাহর রাসুল (সা.) সাহাবিদের বলেন, তাকে একটি উট দিয়ে দাও। তাঁরা বলেন, তার চেয়ে উত্তম বয়সের উটই পাচ্ছি। লোকটি বলল, আপনি আমাকে পূর্ণ হক দিয়েছেন, আল্লাহ আপনাকে যেন পূর্ণ হক দেন। আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেন, তাকে সেটি দিয়ে দাও। কেননা, মানুষের মধ্যে সেই উত্তম, যে উত্তমরূপে ঋণ পরিশোধ করে। (বুখারি, হাদিস : ২৩৯২)

মানুষের উপকার করা : হাদিস শরিফে ইরশাদ হয়েছে, মানুষের মধ্যে উত্তম তারা, যারা অন্যের উপকার করে। (তবরানি)

দীর্ঘ জীবনে ভালো কাজ করা : আবু বকর (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, কোনো এক ব্যক্তি প্রশ্ন করল, হে আল্লাহর রাসুল (সা.), উত্তম ব্যক্তি কে? তিনি বলেন, যে দীর্ঘ জীবন পেয়েছে এবং তার আমল সুন্দর হয়েছে। সে আবার প্রশ্ন করল, মানুষের মধ্যে কে নিকৃষ্ট? তিনি বলেন, যে দীর্ঘ জীবন পেয়েছে এবং তার আমল খারাপ হয়েছে।

(তিরমিজি, হাদিস : ২৩৩০)