সাময়িকভাবে বার্সার শীর্ষস্থানে জিদানের মাদ্রিদ

29

নিউজ ডেস্ক: রিয়াল সোসিয়েদাদকে ২-১ গোলে হারিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। এই জয়ে শীর্ষে থাকা বার্সেলোনাকে ধরে ফেলল লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। শুধু তাই না, সাময়িকভাবে বার্সার শীর্ষস্থানও এখন জিনেদিন জিদানের শিষ্যদের দখলে।

সপ্তাহের শুরুতে সেভিয়ার সঙ্গে গোলশুন্য ড্র করে রিয়ালের জন্য দরজা খুলে দিয়েছিল বার্সেলোনাই। সুযোগের সদ্ব্যবহার করে কাজের কাজটাও সেরে ফেলেছে রিয়াল। শীর্ষে উঠতে জয় পাওয়াটাই যথেষ্ট ছিল। আর সেটাই করে দেখিয়েছে দলটি।

রোববার (২১ জুন) দিবাগত রাতে নিজেদের ঘরের মাঠে খেলতে নেমে রিয়ালের আক্রমণাত্মক ফুটবলের কাছে দিশেহারা হয়ে গিয়েছিল সোসিয়েদাদ। কিন্তু প্রথমার্ধে স্বাগতিকরা গোলমুখ নিরাপদ রাখতে সমর্থ হয়।

প্রথম গোল পেতে রিয়ালকে অপেক্ষায় থাকতে হয় ৫০তম মিনিট পর্যন্ত। আর গোলটি আসে পেনাল্টি থেকে। দারুণভাবে গোলমুখে এগিয়ে যেতে থাকা ভিনিসিয়াস জুনিয়রকে নিজেদের বক্সে ফাউল করে বসেন সোসিয়েদাদের দিয়েগো লোরেন্তে। সঙ্গে সঙ্গে লোরেন্তেকে হলুদ কার্ড দেখানোর পাশাপাশি পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। তবে সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগে ভিএআর’র সহায়তা নেন রেফারি। সুযোগটা দারুণভাবে কাজে লাগান রিয়াল অধিনায়ক।

লা লিগার ইতিহাসে ডিফেন্ডার হিসেবে সর্বোচ্চ গোলের মালিক এখন রামোস। এখন পর্যন্ত লা লিগায় রিয়ালের জার্সিতে তার গোলসংখ্যা ৬৮টি। এর আগে এইবারের বিপক্ষে গোল করে তিনি রোনাল্ড কোয়েমানের কীর্তি (৬৭ গোল) ছুঁয়েছিলেন। তবে লা লিগায় ডিফেন্ডার হিসেবে সবচেয়ে বেশি গোলের মালিক অবশ্য ফার্নান্দো হেরেইরা। কিন্তু তার ১০৫ গোলের মধ্যে কয়েকটি আবার মিডফিল্ড পজিশন থেকে এসেছে।

এই মৌসুমে এখন পর্যন্ত রিয়ালের জার্সিতে ৯ গোল করেছেন রামোস, এর মধ্যে লা লিগায় ৭টি, যা আবার যৌথভাবে তার ক্যারিয়ারের সেরা। কিন্তু এমন ইতিহাস গড়া গোল দেওয়ার কিছুক্ষণ পরেই সোসিয়েদাদের আলেকজান্ডার আইজ্যাকের সঙ্গে সংঘর্ষের পর হাঁটুর ইনজুরি নিয়ে ছিটকে গেছেন তিনি।

খেলার ৭০তম মিনিটে ব্যবধান দিগুণ করেন দুর্দান্ত ফর্মে থাকা করিম বেনজেমা। কাঁধ দিয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে পায়ে নামিয়ে সঙ্গে সঙ্গে রকেট গতিতে বল জালে জড়িয়ে দেন ফরাসি স্ট্রাইকার। শুরুতে হ্যান্ডবলের আবেদন করেন স্বাগতিক দলের খেলোয়াড়রা। তবে ভিএআর’র সহায়তায় গোলের সিদ্ধান্ত দেন রেফারি।

ম্যাচের ৮৩তম মিনিটে ব্যবধান কমানো গোলটি করেন সোসিয়েদাদের মিকেল মেরিনো। রবের্তো লোপেজ দারুণ এক ক্রস দেন ব্যাক পোস্টে থাকা মোরেনোকে। বল খুব শান্তভাবে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আলতো টোকায় লক্ষ্যভেদ করেন মোরেনো। বাকি সময়ে খুব একটা সুবিধা করতে পারেনি কোনো দলই।

এই জয়ের পর শীর্ষে উঠা রিয়ালের সংগ্রহ ৩০ ম্যাচে ৬৫। সমান ম্যাচে সমান পয়েন্ট নিয়েও দুইয়ে নেমে গেছে বার্সা। আর ৩০ ম্যাচে ৪৭ পয়েন্ট নিয়ে ছয়ে সোসিয়েদাদ।