রিয়ার বিরুদ্ধে ৯ অভিযোগ সুশান্তের বাবার

0
35

নিউজ ডেস্ক: বলিউডের প্রিয় মুখ সুশান্ত সিং রাজপুতের আত্মহত্যা ঘটনায় এবার তার ‘প্রেমিকা’ রিয়া চক্রবর্তীকে সরাসরি দায়ী করেছেন সুশান্তের বাবা কেকে সিং।

কেকে সিং রীতিমতো রিয়ার বিরুদ্ধে মামলা ঠুকেছেন বলে জানিয়েছে ভারতের সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া।

শুধু রিয়াই নয়, তার ভাই শৌভিক চক্রবর্তীসহ পরিবারের আরও পাঁচজনের বিরুদ্ধেও এফআইআর করেছেন প্রয়াত অভিনেতার বাবা।

রিয়ার বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা ও মানসিক প্রতারণার অভিযোগ এনে এর পক্ষে ৯টি কারণ দেখিয়েছেন কেকে সিং।

ভারতের সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি সেই কারণগুলো উল্লেখ করে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

সেখানে যে ৯ কারণ দেখানো হয়েছে,

১) ২০১৮ সালে সুশান্তের মধ্যে কোনো মানসিক অস্থিরতা ছিল না। কিন্তু রিয়া তার জীবনে আসার পর থেকেই সুশান্ত মানসিকভাবে ভেঙে পড়তে শুরু করেন। রিয়ার কাছে এর ব্যাখ্যা চেয়েছেন সুশান্তের বাবা।

২) মানসিক অবসাদ থেকে মুক্ত হতে সুশান্তের জন্য যে চিকিৎসা চলছিল, তার কোনো অনুমতি পরিবারের থেকে নেয়া হয়নি।

৩) যে কারণে কেকে সিং বিশ্বাস করেন, সুশান্তের চিকিৎসকরাও তাকে অপমৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়ার ষড়যন্ত্রে যুক্ত রয়েছেন।

৪) রিয়া যখন জানতে পারলেন সুশান্ত মানসিকভাবে অসুস্থ, তখন সুশান্তের পাশে না থেকে উল্টো সব কাগজপত্র নিয়ে বেরিয়ে গিয়েছিলেন। আর এই ঘটনায় মানসিকভাবে প্রচণ্ড আঘাত পান সুশান্ত। যা সুশান্তকে আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে করতে বাধ্য করে।

৫) সুশান্তের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের নথি বলছে, তার ১৭ কোটি টাকা ছিল। সেখান থেকে ১৫ কোটি টাকা এক অপরিচিত অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়েছিল। সেই অ্যাকাউন্টের সঙ্গে সুশান্তের কোনো সম্পর্ক নেই। বিষয়টি তদন্ত করলে অনেক তথ্য বেরিয়ে আসবে।

৬) রিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক হওয়ার পর কেন বলিউডে কাজ পাচ্ছিলেন না সুশান্ত? বিষয়টি আরও খতিয়ে দেখতে অনুরোধ জানিয়েছেন সুশান্তের বাবা।

৭) কুর্গে জৈবকৃষির ব্যবসার উদ্যোগ নিয়েছিল সুশান্ত। সহযোগী ছিলেন বন্ধু মহেশ। কিন্তু এই উদ্যোগে বাধা দেন রিয়া চক্রবর্তী। হুমকি দেন, চিকিৎসার নথি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ করে দেবে। শেষ করে দেবে তার ফিল্ম ক্যরিয়ার।

৮) ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে রিয়ার আপত্তি শোনেননি সুশান্ত। এরপরই সুশান্তের ক্রেডিট কার্ড, ল্যাপটপ, চিকিৎসার নথি, গয়না নিয়ে চম্পট দিয়েছিল রিয়া।

৯) কেকে সিংয়ের অভিযোগ, ওই সময় তিনি বহুবার ছেলের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু রিয়া, তার সহযোগী ও পরিবার সে সুযোগ করে দেয়নি।

উল্লেখ্য, সুশান্তের মৃত্যু রহস্য উদঘাটনে এর আগে রিয়া চক্রবর্তীকে প্রায় সাত ঘণ্টা জেরা করেছিলর মুম্বাই পুলিশ।

সেই জিজ্ঞাসাবাদের পর পুলিশ জানতে পারে, সম্প্রকি ইউরোপ ভ্রমণে সুশান্তের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করেছিলেন রিয়া। তার এক দেহরক্ষীকেও বহিষ্কার করেছিলেন তিনি। সুশান্তের কোম্পানিতেও শেয়ার ছিল রিয়া এবং তার ভাইয়ের। রিয়ার সঙ্গে সুশান্তের প্রেম এতোটাই গভীর ছিল যে, সুশান্তের বান্দ্রার ফ্ল্যাটেই থাকতেন রিয়া। ১৪ জুন সুশান্ত আত্মহত্যা করার একসপ্তাহ আগেই তিনি ফ্ল্যাট ছেড়ে বেরিয়ে যান। অন্যত্র থাকতে শুরু করেন।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ জুন বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মরদেহ তার বান্দ্রার ফ্ল্যাটে সিলিংয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। সুশান্ত কেন আত্মহত্যা করেছেন তার কারণ অনুসন্ধানে নেমেছে মুম্বাই পুলিশ। এখনও পর্যন্ত প্রায় ৪০ জনকে জেরা করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে