জাতীয়

ডেপুটি স্পিকার মো. শামসুল হক টুকু বলেছেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট জাতির পিতাসহ তার পরিবারের সদস্যদের নৃশংসভাবে হত্যার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বানানোর নীলনকশা তৈরি করেছিল পাকিস্তানী প্রেতাত্মারা। তাদের ষড়যন্ত্রকে ধুলিস্মাৎ করে, জীবনের ঝুকি নিয়ে দেশে প্রত্যাবর্তন করে আওয়ামী লীগের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন ও দেশকে সমৃদ্ধির পথ দেখান শেখ হাসিনা। সম্প্রতি জাতিসংঘ তাকে বিশ্বের সেরা তৃতীয় প্রধানমন্ত্রীর সম্মানে ভূষিত করেছে। মঙ্গলবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে তিমির হননের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬ তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে সম্প্রীতি বাংলাদেশের উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। ডেপুটি স্পিকার বলেন, বিশ্বে এমন নজিরবিহীন জঘন্য হত্যাকাণ্ডের পর, নিজের পরিবারকে হারিয়ে হয়ত কেউই দেশে ফেরার সাহস পেত না। জাতির পিতার কন্যা বলেই তিনি পিতার আজন্ম স্বপ্নকে বাস্তবায়ন ও দেশ পুনর্গঠনে, মৃত্যুকে ভৃত্য বানিয়ে দেশে ফিরলেন। শত বাঁধা পেরিয়ে ধীরে ধীরে দেশকে নিয়ে যাচ্ছে সমৃদ্ধির পথে ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কক্ষপথে। তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনা সম্প্রীতির শিক্ষা পেয়েছেন তার পরিবার থেকে। তার পরিবার সারাজীবন অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে লড়াই করে গেছেন। বিশ্বনেত্রী যে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেন তা যেন তিনি নিজ হাতেই করে যেতে পারেন। সভা শেষে পাবনা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক, ভাষা সংগ্রামী মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক ও কলামিষ্ট রণেশ মৈত্রের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ, সহধর্মিনীকে ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যের সমবেদনা জানাতে ধানমণ্ডির বাসভবনে যান মো. শামসুল হক টুকু। আলোচনায় প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমান। সম্প্রীতি বাংলাদেশের আহবায়ক পীযূষ বন্দ্যোপাধায়ের সভাপত্বিতে ও সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন আল মাহতাবের সঞ্চালনায় আলোচনা অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন প্রফেসর হারুন অর রশিদ, ইউজিসির সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল মান্নান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর নিজামুল হক ভূইয়া, সাবেক তথ্য কমিশনার প্রফেসর সাদেকা হালিমসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

দেশ পুনর্গঠনে জীবন বাজি রাখেন শেখ হাসিনা: ডেপুটি স্পিকার

0
নিউজ ডেস্ক: ডেপুটি স্পিকার মো. শামসুল হক টুকু বলেছেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট জাতির পিতাসহ তার পরিবারের সদস্যদের নৃশংসভাবে হত্যার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র...

দেশজুড়ে

বর্ষা মৌসুম বা সামান্য বৃষ্টি হলেই চরম দুর্ভোগে পড়েন লক্ষ্মীপুরের রায়পুর পৌরবাসী। সামান্য বৃষ্টিতেই কাদাপানিতে সয়লাব হয়ে যায় পৌর এলাকা। ভারি বর্ষণে অধিকাংশ এলাকায় তৈরি হয় জলাবদ্ধতা। নিচু এলাকার ঘরবাড়িতেও উঠে যায় পানি। স্থানীয়রা বলছেন, ড্রেনেজব্যবস্থা বা কাজ না করায় দুর্গন্ধযুক্ত নোংরা ও ময়লা-আবর্জনার পানি সড়কে উঠে যায়। অপরিকল্পিত ড্রেনেজব্যবস্থা ও স্বাভাবিক পানি প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হওয়া এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগ তাদের। রায়পুর পৌরসভা প্রথম শ্রেণির হলেও সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন পৌরবাসী। বিশেষ করে জলাবদ্ধতা সমস্যা বর্তমানে পৌরবাসীর প্রধান সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। রায়পুর পৌরসভা ২০০৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি স্থাপিত হয়। আয়তন- ৭ দশমিক ২৫ বর্গ কিলোমিটার ও জনসংখ্যা ৫১ হাজার জন। গত টানা বৃষ্টিতে আকস্মিক বর্ষণে পৌরসভার মীরগঞ্জ সড়কের সর্দার বাড়ি, ট্রাফিক মোড় থেকে হায়দরগঞ্জ সড়কের খাজুরতলা, নতুনবাজার থেকে মহিলা কলেজ, উপজেলা পরিষদ চত্বর, মা ও শিশু হাসপাতালের পেছনের বীর মুক্তিযোদ্ধা খোসরু সড়ক, মিজি সড়কসহ বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। হাটবাজারগুলোও কাদাপানিতে সয়লাব হয়ে পড়েছে। পৌরসভা এলাকার ইউএনও অফিস, শহীদ মিনারের পাশের ইসলামি ফাউন্ডেশন অফিসসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বেসরকারি বিভিন্ন অফিস জলমগ্ন হয়। শহরের খাজুরতলা এলাকার বাহার হোসেন মৃধা জানান, রায়পুর পৌরসভার ট্রাফিক মোড় থেকে হায়দরগঞ্জের খাজুরতলা সড়কের দুই পাশে যে যার মতো দোকানপাট নির্মাণ করায় সড়কে জলাবদ্ধতায় ভরাট হয়ে গেছে। পানির স্বাভাবিক গতিপথ পরিবর্তন হওয়ায় জলাবদ্ধতা বেড়েছে। মহিলা কলেজ এলাকার আকতার হোসেন বলেন, বৃষ্টি শুরু হলেই আমাদের এলাকায় পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ঘরবাড়ি রাস্তাঘাটেও পানি জমে যায়। রান্নাবান্না করতে খুবই অসুবিধা হয়। রায়পুর পৌর মেয়র গিয়াস উদ্দিন রুবেল ভাট জানান, পৌরসভা উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। কিছু ড্রেনের সমস্যার কথা স্বীকার করে তিনি জানান, পৌরবাসীদের মধ্যেও কিছু মানুষ বাড়ির ময়লা-আবর্জনা ড্রেনে ফেলছেন। প্রতিদিন আমাদের পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা ড্রেন পরিষ্কার করছেন। ড্রেনের ময়লা নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হচ্ছে। আমরা পৌর কর্তৃপক্ষ আন্তরিকভাবে চেষ্টা করছি। অনেক পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়সহ অন্যান্য প্রকল্পের বরাদ্দ পেলে এসব সমস্যার সমাধান সম্ভব হবে বলে জানান তিনি। রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অঞ্জন দাশ যুগান্তরকে বলেন, বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয় কমপ্লেক্স চত্বর। দ্রুত ব্যবস্থা করা হবে।

টানা বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা, দুর্ভোগে রায়পুর পৌরবাসী

0
নিউজ ডেস্ক: বর্ষা মৌসুম বা সামান্য বৃষ্টি হলেই চরম দুর্ভোগে পড়েন লক্ষ্মীপুরের রায়পুর পৌরবাসী। সামান্য বৃষ্টিতেই কাদাপানিতে সয়লাব হয়ে যায় পৌর এলাকা। ভারি বর্ষণে অধিকাংশ...

পুরো বিশ্ব

মহামারির মতো কলেরা ছড়িয়ে পড়েছে সিরিয়ার সবচেয়ে জনবহুল প্রদেশ আলেপ্পোয়। এতে অন্তত ২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়ে সিরিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। খবর আলজাজিরার। জানা গেছে, গত মাসে আলেপ্পোয় কলেরার প্রাদুর্ভাব ঘটে। শুরুর দিকে সেভাবে না ছড়ালেও গত কয়েক দিনে প্রদেশেটির গ্রাম ও শহরে শত শত রোগী কলেরায় আক্রান্ত হয়েছে। এদিকে জাতিসংঘের সিরিয়া শাখার কর্মকর্তারা আলেপ্পোর ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ইউফ্রেটিস নদীর পানি দূষণকেই সাম্প্রতিক এ প্রাদুর্ভাবের জন্য দায়ী করেছেন। তারা জানিয়েছেন, চলতি বছর নিম্নবৃষ্টিপাত ও তাপপ্রবাহের কারণে নলকূপ ও সুপেয় পানির অন্যান্য উৎস শুকিয়ে যাওয়ায় বাধ্য হয়ে নদীর পানি পান করছেন আলেপ্পোর জনগণ; কিন্তু সেই পানি যথাযথভাবে জীবণুমুক্ত না করে পান করার কারণেই কলেরার এ প্রাদুর্ভাবের জন্য দায়ী।

সিরিয়ায় কলেরায় ২৯ জনের মৃত্যু

0
নিউজ ডেস্ক: মহামারির মতো কলেরা ছড়িয়ে পড়েছে সিরিয়ার সবচেয়ে জনবহুল প্রদেশ আলেপ্পোয়। এতে অন্তত ২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়ে সিরিয়ার স্বাস্থ্য...

খেলার মাঠে

আবুধাবিতে টি-টেন লিগের ষষ্ঠ আসরের নিলাম অনুষ্ঠিত হয়েছে সোমবার। যে নিলামের ড্রাফট থেকে বাংলাদেশের চার ক্রিকেটার দল পেয়েছেন এবারের আসরে। শুরুতে নুরুল হাসান সোহান, এর পর মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরীকে বাংলাদেশি মালিকানাধীন দল বাংলা টাইগার্স দলে ভেড়ায়। এর পর পেসার মোস্তাফিজুর রহমানকে দলে যুক্ত করে টিম আবুধাবি। সবশেষ ড্রাফটের শেষ সময়ে আরেক পেসার তাসকিন আহমেদকে দলে নিয়েছে বর্তমান টি-টেনের চ্যাম্পিয়ন দল ডেকান গ্ল্যাডিয়েটরস। মোস্তাফিজ-সোহান দল পেলেও অবশ্য টি-টেনে দল পাননি বাংলাদেশি আরও কয়েকজন তারকা ক্রিকেটার। নিলামে এসব ক্রিকেটারের প্রতি আগ্রহ প্রকাশ করেনি কোনো দল। এদের মধ্যে রয়েছেন— মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, তামিম ইকবাল, কিংবা আফিফ হোসেনের মতো তারকা ক্রিকেটাররা। এ ছাড়া শামীম হোসেন পাটোয়ারী, আল-আমিন হোসেনসহ আরও কয়েকজন বাংলাদেশি খেলোয়াড় ছিলেন টি-টেন লিগের ড্রাফটে অবিক্রীত। বাংলাদেশি মালিকানাধীন দল বাংলা টাইগার্সে তিনবাংলাদেশি খেলোয়াড়কে দলে ভিড়িয়েছে। এ ছাড়া ডেকান গ্ল্যাডিয়েটরসে নাম লিখিয়েছেন তাসকিন আহমেদ এবং টিম আবুধাবিতে যোগ দিয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান। এর আগে সাকিব আল হাসানকে আইকন ক্রিকেটার হিসেবে দলে যুক্ত করেছিল বাংলা টাইগার্স।

টি-টেন লিগে এখনো দল পাননি তামিম-রিয়াদ

0
নিউজ ডেস্ক: আবুধাবিতে টি-টেন লিগের ষষ্ঠ আসরের নিলাম অনুষ্ঠিত হয়েছে সোমবার। যে নিলামের ড্রাফট থেকে বাংলাদেশের চার ক্রিকেটার দল পেয়েছেন এবারের আসরে। শুরুতে নুরুল হাসান...
স্ত্রী ইসরাত জাহানের করা মামলায় জামিন পেয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটার আল-আমিন হোসেন। শুনানি শেষে বিচারক পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় ৬ অক্টোবর পর্যন্ত তার জামিন মঞ্জুর করেন আদালত। মঙ্গলবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শফি উদ্দিনের আদালতে আত্মসমর্পণ করে আইনজীবীর মাধ্যমে জামিনের আবেদন করেন তিনি। এর আগে একসঙ্গে বসবাসের অধিকার, মাসিক ভরণ-পোষণ ও সন্তানদের খরচ দাবি করে গত ৭ সেপ্টেম্বর ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শফি উদ্দিনের আদালতে মামলাটি করেন আল-আমিনের স্ত্রী ইসরাত জাহান। আদালত মামলাটি আমলে নিয় আল-আমিনকে আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেন। মামলার এজাহারে বলা হয়, ২০১২ সালের ২৬ ডিসেম্বর ইসলামী শরিয়াহ অনুযায়ী ইসরাত জাহান ও আল-আমিন বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের দুটি পুত্রসন্তান রয়েছে। বড় ছেলে মিরপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে ইংরেজি ভার্সনে কেজিতে পড়াশোনা করছে। বেশ কিছুদিন ধরে আল-আমিন তার স্ত্রী ও সন্তানদের ভরণ-পোষণ দেন না এবং খোঁজও নিচ্ছেন না। দুই বছর ধরে আসামি বাদীর কোনো খোঁজখবর নেন না এবং বাসায় নিয়মিত থাকেন না। যার কারণে ইসরাত তার দুই সন্তানসহ বসতবাড়িতে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করার অধিকারসহ মাসিক ভরণ-পোষণ দাবি করে মামলাটি করেন। জীবনধারণের জন্য ৪০ হাজার, দুই সন্তানের ভরণ-পোষণ ও ইংলিশ মিডিয়ামে লেখাপড়াবাবদ মাসে ৬০ হাজার টাকা আল-আমিনের কাছে পাওয়ার হকদার বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়। গত ২৫ আগস্ট রাত সাড়ে ১০টার দিকে আল-আমিন বাসায় এসে স্ত্রীর কাছে যৌতুকের জন্য ২০ লাখ টাকা দাবি করেন। ইসরাত জাহান টাকা দিতে অস্বীকার করলে আল-আমিন তাকে মারধর করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করেন। ইসরাত জাহান ৯৯৯-এ টেলিফোন করে সাহায্য চাইলে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করেন। পরে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নেন ইসরাত জাহান। এ ঘটনায় ১ সেপ্টেম্বর মিরপুর মডেল থানায় মামলাও হয়। সর্বশেষ গত ৩ সেপ্টেম্বর আল-আমিন তার মায়ের মাধ্যমে জানান, ইসরাতের সঙ্গে সংসার করবেন না এবং সন্তানদের ভরণ-পোষণ দেবেন না। প্রয়োজনে স্ত্রীকে তালাক দেবেন।

স্ত্রীর মামলায় জামিন পেলেন ক্রিকেটার আল-আমিন

0
নিউজ ডেস্ক: স্ত্রী ইসরাত জাহানের করা মামলায় জামিন পেয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটার আল-আমিন হোসেন। শুনানি শেষে বিচারক পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় ৬ অক্টোবর পর্যন্ত...
স্বাগতিক সংযুক্ত আরব আমিরাতকে হোয়াইটওয়াশ করার লক্ষ্যে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে আজ মাঠে নামবেন টাইগাররা। মঙ্গলবার দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায়। দুর্বল আমিরাতের বিপক্ষে গত রাতে প্রথম ম্যাচে বলতে গেলে বেগ পেয়েই জিততে হয়েছে বাংলাদেশকে। দলের পারফরমেন্স মোটেই আশানুরুপ ছিল না। তাই দ্বিতীয় ম্যাচে পারফরমেন্সের উন্নতি ঘটানও লক্ষ্য টাইগারদের। প্রথমে ব্যাট করে ৫ উইকেটে ১৫৮ রান তুলে বাংলাদেশ। বাজে শুরুর পরও লড়াকু পুঁজি পায় টাইগাররা। আরব আমিরাত ইনিংসের শেষ পর্যন্ত আফজাল খান ক্রিজে থাকায়, কপালে চিন্তার ভাঁজ ছিল বাংলাদেশের। শেষ পর্যন্ত ঘাম ঝড়িয়ে জিততে হয়েছে বাংলাদেশকে। ম্যাচটিতে ফিল্ডিংয়ের সমস্যাটা ভলোভাবে আবারও ফুটে ওঠে। ক্যাচ ড্রপ, ফিল্ডিং মিস বাংলাদেশের জন্য বড় চিন্তার বিষয়। বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ: মেহেদী হাসান মিরাজ, নাজমুল হোসেন শান্ত/সাব্বির রহমান, আফিফ হোসেন, লিটন দাস, ইয়াসির আলী রাব্বি, নুরুল হাসান সোহান (অধিনায়ক), মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, সৌম্য সরকার, মোস্তাফিজুর রহমান, নাসুম আহমেদ ও তাসকিন আহমেদ/হাসান মাহমুদ।

আমিরাতের বিপক্ষে বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ

0
নিউজ ডেস্ক: স্বাগতিক সংযুক্ত আরব আমিরাতকে হোয়াইটওয়াশ করার লক্ষ্যে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে আজ মাঠে নামবেন টাইগাররা। মঙ্গলবার দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু...
টি-টেন লিগে দল পেলেন পেসার তাসকিন আহমেদও। ডেকান গ্লাডিয়েটর্সের হয়ে খেলবেন গতিময় এই পেসার। আইকন খেলোয়াড় এবং অধিনায়ক হিসেবে আগেই সাকিব আল হাসানের নাম ঘোষণা করেছিল বাংলা টাইগার্স। ড্রাফট থেকে টাইগার্স দলে নিয়েছে নুরুল হাসান সোহান এবং মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরীকে। টিম আবুধাবি নিয়েছে মোস্তাফিজুর রহমানকে আর ড্রাফট শেষে তাসকিনকে দলে নিয়েছে ডেকান গ্লাডিয়েটর্স। ড্রাফটে নাম থাকলেও শেষপর্যন্ত দল পাননি জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল। আবুধাবিতে টি-টেন লিগের ৬ষ্ঠ আসর শুরু হবে ২৩ নভেম্বর। এ প্রতিযোগিতার ফাইনাল হবে ৪ ডিসেম্বর। টি-টেন লিগে গত আসরে ৬ দল অংশ নিলেও এবার যোগ হচ্ছে আরও দুটি দল। দলগুলো হলো- বাংলা টাইগার্স, চেন্নাই ব্রেভস, ডেকান গ্লাডিয়েটর্স, দিল্লি বুলস, নর্দান ওয়ারিয়র্স এবং টিম আবুধাবি। এবার নতুন দুই দল হলো- মরিসভিলে এসএএমপি ও নিউইয়র্ক স্ট্রাইকার্স।

সাকিব-মোস্তাফিজ-সোহানের পর দল পেলেন তাসকিন

0
নিউজ ডেস্ক: টি-টেন লিগে দল পেলেন পেসার তাসকিন আহমেদও। ডেকান গ্লাডিয়েটর্সের হয়ে খেলবেন গতিময় এই পেসার। আইকন খেলোয়াড় এবং অধিনায়ক হিসেবে আগেই সাকিব আল হাসানের নাম...
বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পরবর্তী তিনটি আসরের জন্য ৭ দলের মালিকানা মনোনীত করেছে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। এই ৭ দলের জন্য সাত প্রতিষ্ঠানকে চূড়ান্ত করার পথে এখন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। রোববার এক বিজ্ঞপ্তিতে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর নাম প্রকাশ করে বিসিবি। যেখানে নতুন যুক্ত হয়েছে রংপুর বিভাগ। বিপিএলের গত আসরে অংশ নিয়েছিল ছয়টি দল। রংপুর থেকে কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজিকে ওই আসরে দেখা যায়নি। এবার বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকায় রংপুর দল গঠন করেছে। অর্থাৎ এবার থেকে বিপিএলে অংশ নিচ্ছে বরিশাল, খুলনা, ঢাকা, সিলেট, রংপুর, চট্টগ্রাম ও কুমিল্লা দল । নির্বাচিত সাত প্রতিষ্ঠানকে মালিকানার চূড়ান্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে ডাকা হয়েছে। রোববার সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিসিবি জানায়, বিস্তারিত পর্যালোচনা ও মূল্যায়ন শেষে এই সাতটি প্রতিষ্ঠানকে বাছাই করেছে গভর্নিং কাউন্সিল। বরিশালের মালিকানার জন্য মনোনীত হয়েছে ফরচুন বরিশাল স্পোর্টস লিমিটেড, খুলনা দলের জন্য মাইন্ডট্রি লিমিটেড, ঢাকা দলের জন্য প্রগতি গ্রিন অটো রাইস মিলস লিমিটেড, সিলেটের ফিউচার স্পোর্টস বাংলাদেশ লিমিটেড, রংপুরের জন্য বসুন্ধরা গ্রুপের টগি স্পোর্টস লিমিটেড, চট্টগ্রামের ডেল্টা স্পোর্টস লিমিটেড ও কুমিল্লার জন্য কুমিল্লা লেজেন্ডস লিমিটেড। এবার বেক্সিমকো গ্রুপ ও জেমকন গ্রুপ দল কেনায় আগ্রহ দেখায়নি। শুরুতে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স অনাগ্রহ দেখালেও পরে তারা আসে। আগামী ৫ জানুয়ারি থেকে পরবর্তী বিপিএল শুরুর সম্ভাব্য সময় ঠিক করে রেখেছে বিসিবি। চলবে ১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। প্রথমবারের মতো টানা আসরের সম্ভাব্য সময়ও নির্ধারণ করা হয়েছে। ২০২৪ সালের আসর হবে ৬ জানুয়ারি থেকে ১৭ ফেব্রুয়ারি এবং ২০২৫ সালের আসর ১ জানুয়ারি থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) ক্রিকেটের সাতটি ফ্র্যাঞ্চাইজি - দল মালিকানা বরিশাল ফরচুন বরিশাল স্পোর্টস লি. খুলনা মাইন্ডট্রি লি. ঢাকা প্রগতি গ্রিন অটো রাইস মিলস লি. সিলেট ফিউচার স্পোর্টস বাংলাদেশ লি. রংপুর টগি স্পোর্টস লি. (বসুন্ধরা গ্রুপ) চট্টগ্রাম ডেল্টা স্পোর্টস লি. কুমিল্লা কুমিল্লা লিজেন্ডস লি.

বিপিএলের ৭ দলের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ

0
নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পরবর্তী তিনটি আসরের জন্য ৭ দলের মালিকানা মনোনীত করেছে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। এই ৭ দলের জন্য সাত প্রতিষ্ঠানকে চূড়ান্ত করার...

বায়োস্কোপ

ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় নায়িকা মাহিয়া মাহি। বিভিন্ন সময় ফেসবুক স্ট্যাটাসে রহস্যময় কথা বলে থাকেন তিনি। আগামীতে মুক্তির অপেক্ষায় আছে মাহি অভিনীত ‘যাও পাখি বলো তারে’ সিনেমা। ৭ অক্টোবর প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে যাচ্ছে সিনেমাটি। ত্রিভুজ প্রেমের গল্পে নির্মিত এ সিনেমার মুক্তি উপলক্ষ্যে ইতোমধ্যে টাইটেল গান প্রকাশ হয়েছে। রোববার রাত সাড়ে ৮টায় ফেসবুকে তিনি লিখেছেন— বছরকে বছর যাদের প্রতি আমার প্রচণ্ড ঘৃণা ছিল, রাগ ছিল, অভিমান ছিল, যারা আমাকে ঠকিয়েছিল ও আমার বিশ্বাস ভেঙে ছিল এবং যাদের আমৃত্যু ক্ষমা না করার পণ করেছিলাম, তাদের সবাইকে আজকে থেকে ক্ষমা করে দিলাম। আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন, কেমন? কেন, কাকে কিংবা কী উদ্দেশ্যে এ স্ট্যাটাস দিয়েছেন— এ বিষয়ে কিছু উল্লেখ করেননি নায়িকা। তবে তারকার এ পোস্টে মন্তব্যের ঘরে শুভেচ্ছা ও প্রশংসামূলক মন্তব্য করছেন শুভাকাঙ্ক্ষীরা। এর আগে গত ১২ সেপ্টেম্বর সুখবর দেন অগ্নিখ্যাত নায়িকা। মা হতে যাওয়ার খবর জানান তিনি। সেই সময় এ অভিনেত্রী ফেসবুকে জানান, আমি তো আমার জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ সময়গুলো পার করছি। দিনরাত কীভাবে চলে যাচ্ছে টেরই পাচ্ছি না। প্রচণ্ড আদর-যত্নে দিনগুলো কেটে যাচ্ছে। কারণ আমি আল্লাহর অশেষ রহমতে মা হতে যাচ্ছি, ইনশাআল্লাহ। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন। প্রসঙ্গত, ‘যাও পাখি বলো তারে’ মুক্তি পেতে যাওয়া সিনেমায় আরও অভিনয় করেছেন আদর আজাদ, রাশেদ মামুন অপু, সুব্রত, মাহমুদুল ইসলাম মিঠু (বড়দা মিঠু), মাসুম বাশার, অভিনেত্রী রেবেকা, মিলি বাশার, লাবণ্য প্রমুখ। সিনেমাটির নির্বাহী প্রযোজক তমালিকা আকরাম।

‘যাদের আমৃত্যু ক্ষমা না করার পণ করেছিলাম, তাদের মাফ করে দিলাম’

0
নিউজ ডেস্ক: ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় নায়িকা মাহিয়া মাহি। বিভিন্ন সময় ফেসবুক স্ট্যাটাসে রহস্যময় কথা বলে থাকেন তিনি। আগামীতে মুক্তির অপেক্ষায় আছে মাহি অভিনীত ‘যাও পাখি...

ফিচার

নারীদেহে এন্ড্রোজেনের বা পুরুষ যৌন হরমোন আধিক্যের কারণে যে সমস্যা দেখা দেয় সেটিকে পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোম বলা হয়ে থাকে। বালিকা ও নারীদের প্রজননক্ষম সময়ে এই সমস্যা বেশি দেখা দেয়। বাংলাদেশে এ রোগের হার ২৫ শতাংশের কাছাকাছি হবে বলে ধরে নেওয়া হয়। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের হরমোন ও ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ এন্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. শাহজাদা সেলিম। পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোমের প্রভাবে বিভিন্ন লক্ষণ দেখা দিতে থাকে। যেমন- ক. অনিয়মিত মাসিক খ. অতিরিক্ত রক্তস্রাব গ. মুখে ও শরীরে অত্যধিক লোম (পুরুষালি) ঘ. ব্রণ মুখে ও শরীরের অন্যান্য অংশে। আরও কিছু শারীরিক সমস্যা থাকতে পারে- তলপেটে ব্যথা, মকমলের মতো কালো ত্বক (ঘাড়, বগল ইত্যাদি জায়গায়), বন্ধ্যত্ব। রোগীদের টাইপ-২ ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। এদের অনেকেই দৈহিক স্থূ’লতায় আক্রান্ত হয়, নাকডাকা ও ঘুমের সময় হঠাৎ করে শ্বাস বন্ধ হওয়া, হৃদরোগের ঝুঁকি বেড়ে যাওয়া, মানসিক ভারসাম্যহীনতা ও জরায়ু ক্যান্সারের ঝুঁকি বৃদ্ধি পেতে পারে। জিনগত ত্রুটি আছে এমন কিশোরীর দৈহিক ওজন বৃদ্ধি পাওয়া, খুব কম শারীরিক শ্রম সম্পাদন করা ও ঝুঁকিপূর্ণ খাবার খাওয়া ইত্যাদি এ রোগের আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয়। পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোমে ডিম্বাশয় অতিরিক্ত পরিমাণে টেস্টোস্টেরন হরমোন তৈরি করতে উদ্দীপ্ত হয়। যার পেছনে পিটুইটারি গ্রন্থির অতিরিক্ত এলএইচ (LH) নিঃস্বরণ ও দেহে ইনসুলিন রেজিস্ট্রেন্সের উপস্থিতিই কারণ। পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোম নাম হওয়ার প্রধান কারণ হল ডিম্বাশয়ে বিভিন্ন বয়সি, বিভিন্ন আকারের, বিভিন্ন সংখ্যার সিস্ট থাকবে। রোগ শনাক্তকরণ নিম্নলিখিত ক্রাইটেরিয়ার যে কোনো দুটির উপস্থিতি আবশ্যক- * নারীদেহে অতিরিক্ত এন্ড্রোজেন হরমোন উপস্থিতি। * অনিয়মিত ঋতুস্রাব। * ডিম্বাশয়ে সিস্ট। পরীক্ষা-নিরীক্ষা * সিরাম টেস্টোস্টেরন, এলিস, এফএসএইচ। * পেটের আল্ট্রাসনোগ্রাম। * ওজিটিটি। চিকিৎসা জীবনযাত্রা ব্যবস্থাপনা : চিকিৎসার শুরুতেই খাদ্য ব্যবস্থাপনার দিকে নজর দিতে হবে। রোগীর দৈহিক ওজন কাক্সিক্ষত মাত্রায় পৌঁছতে সাহায্য করবে, বিপাকীয় প্রক্রিয়ার উন্নতি ঘটাবে যাতে করে ইনসুলিন রেজিস্ট্রেন্স কমে যাওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাবে। আদর্শ জীবনযাপন ব্যবস্থাপনা রোগীর হৃদরোগ ও ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি কমাবে। এ রোগীদের খাদ্য তালিকায় শর্করার আধিক্য কম থাকবে, শাকসবজি (আলু বাদে), রঙিন ফল-মূল ও আমিষজাতীয় খাদ্য প্রাধান্য পাবে। দৈহিক ওজন বা বিএমআই বিবেচনায় রেখে শারীরিক শ্রমের ব্যবস্থা করতে হবে। ওষুধ * মহিলাদের জন্ম নিয়ন্ত্রণের জন্য ব্যবহৃত পিলগুলো যাতে স্বল্প মাত্রায় ইস্ট্রোজেন ও প্রজেস্ট্রেরন থাকে, তা সহায়ক ওষুধ। * মেটফরমিন * অবাঞ্ছিত লোম দূর করার ক্রিম * প্রজনন সম্ভাবনা বৃদ্ধির ওষুধ পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোমে আক্রান্ত নারীদের অধিকাংশই এ সমস্যার শারীরিক লক্ষণগুলো খুব দ্রুত বুঝতে পারেন না। কেউ কেউ লক্ষণগুলো বুঝতে পারলেও সংকোচ বোধের কারণে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে দেরি করেন। যেহেতু রোগটির ব্যাপকতা ও সুদূরপ্রসারী স্বাস্থ্য ঝুঁকি আছে, তাই প্রজননক্ষম বয়সের সব নারীকে তার এ সমস্যা আছে কিনা জানার জন্য হরমোন বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হওয়া জরুরি।

নারীদেহে পুরুষ হরমোন বেশি হলে যেসব সমস্যা হয়ে থাকে

0
নিউজ ডেস্ক: নারীদেহে এন্ড্রোজেনের বা পুরুষ যৌন হরমোন আধিক্যের কারণে যে সমস্যা দেখা দেয় সেটিকে পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোম বলা হয়ে থাকে। বালিকা ও নারীদের প্রজননক্ষম...
Advertisement
4,860FansLike
1,900SubscribersSubscribe
Advertisement

অর্থনীতি

দেশের বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের প্রধান উৎস রপ্তানি এবং রেমিট্যান্স। এ দুই খাতে আয় বাড়ছে। এদিকে পণ্য আমদানির জন্য এলসি খোলা কমতে শুরু করেছে। এরপরও আমদানি ব্যয় কমেনি। ফলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বৃদ্ধির পরিবর্তে কমে যাচ্ছে। রিজার্ভ কমে গত রোববার ৩৬৮৫ কোটি ডলারে দাঁড়িয়েছে। করোনার সময় স্থগিত এলসির দেনা ও বৈদেশিক ঋণের কিস্তি পরিশোধের চাপে রিজার্ভ কমে যাচ্ছে। জানা গেছে, গত অর্থবছরে রেমিট্যান্স খাতে আয় হয়েছে ২১০৩ কোটি ডলার। রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৫২০৮ কোটি ডলার। এই দুই খাতে ৭৩১১ কোটি ডলার আয় হয়। একই অর্থবছরে আমদানি বাবদ ব্যয় হয়েছে ৮২৫০ কোটি ডলার। বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের চেয়ে বেশি ব্যয় হয়েছে ৯৩৩ কোটি ডলার। বাড়তি বৈদেশিক মুদ্রা রিজার্ভ থেকে পরিশোধ হচ্ছে। এর বাইরে বৈদেশিক বিনিয়োগ বাবদ গত অর্থবছরে এসেছে ২১৮ কোটি ডলার। একই সময়ে বিদেশে চিকিৎসা, ভ্রমণ ও পড়াশোনায় এর চেয়ে বেশি বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় হচ্ছে। সব মিলে আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি হচ্ছে। এ কারণে ডলারের সংকটও প্রকট হচ্ছে। আগে রপ্তানি আয় দিয়ে ৬০ শতাংশ আমদানি ব্যয় মেটানো যেত। বাকি ৪০ শতাংশ আমদানি ব্যয় মেটানো হতো রেমিট্যান্স দিয়ে। এই ব্যয় মিটিয়ে আরও কিছু ডলার থেকে যেত। সেগুলো রিজার্ভে যোগ হয়েছে। গত বছরের আগস্ট থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের দাম হু-হু করে বাড়া ও রেমিট্যান্স কমার কারণে রপ্তানি আয় ও রেমিট্যান্স দিয়েও আমদানি ব্যয় পুরোপুরি মেটানো যাচ্ছে না। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর ফলে পণ্যের দাম আরও বেড়ে যাওয়ায় এ খাতে সংকট আরও প্রকট হয়। এ প্রসঙ্গে পলিসি রিসার্স ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ও বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ আহসান এইচ মনসুর বলেন, প্রধান সংকট হচ্ছে বৈদেশিক মুদ্রা আয় কমে গেছে, ব্যয় বেড়ে গেছে। এখন এই সংকট মোকাবিলা করতে দুটি পদক্ষেপ নিতে হবে। এক. বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় কমাতে হবে এবং দুই. বৈদেশিক মুদ্রা আয় বাড়াতে হবে। অথবা একই সঙ্গে দুটি নিতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সেদিকেই হাঁটছে। বিধিনিষেধ আরোপের ফলে এখন আমদানি কমছে। কিন্তু আগের স্থগিত এলসির দেনাগুলো এখন পরিশোধ করতে হচ্ছে। এ কারণে রিজার্ভে চাপ বেশি। তবে আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের দাম কমে গেলে রিজার্ভে চাপও কমবে। সূত্র জানায়, দেশের বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের প্রধান উৎস এখন রপ্তানি খাত। চলতি অর্থবছরের জুলাই-আগস্ট এই দুই মাসে এ খাতে আয় বেড়েছে ২৫ দশমিক ৩১ শতাংশ। গত অর্থবছরে বেড়েছিল ৩৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ। বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের দ্বিতীয় বৃহত্তম খাত প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স প্রবাহ গত অর্থবছরে কমেছিল ১৫ দশমিক ১২ শতাংশ। তবে চলতি অর্থবছরের জুলাই-আগস্ট এই দুই মাসে বেড়েছে ১২ দশমিক ২৯ শতাংশ। অন্যদিকে বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয়ের প্রধান খাত আমদানিতে গত মে থেকে এলসি খোলার হার কমতে শুরু করেছে। ওই সময় থেকে আমদানি খাতে নানা ধরনের বিধিনিষেধ আরোপিত হওয়া এবং ডলার সংকটের কারণে এলসি খোলা কমেছে। যে কারণে এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের (আকু) জুলাই আগস্টের দেনা কমে ১৭৬ কোটি ডলার হয়েছে। এর আগের দুই মাসে অর্থাৎ মে-জুনে এ খাতে ১৯৬ কোটি ডলার এবং মার্চ-এপ্রিলে ২০৯ কোটি ডলার পরিশোধ করা হয়েছিল। আমদানি কমায় এ খাতে দেনাও কমেছে। তবে সার্বিক আমদানি ব্যয় বেড়ে গেছে। গত অর্থবছরে আমদানি ব্যয় বেড়েছে ৩৬ শতাংশ। চলতি অর্থবছরের জুলাইয়ে বেড়েছে ২৩ দশমিক ২৩ শতাংশ। গত জুলাই-আগস্টে এলসি খোলা প্রবৃদ্ধি কমে ১০ শতাংশ হয়েছে। আগে এ খাতে প্রবৃদ্ধি ছিল ৩৪ শতাংশ। সূত্র জানায়, গত মে থেকে এলসি খোলার হার কমলেও করোনার সময় গত ২০২০, ২০২১ ও ২০২২ সালের শুরুর দিকে অনেক এলসির দেনা পরিশোধ স্থগিত করা হয়েছে। একই সঙ্গে অনেক বৈদেশিক ঋণের কিস্তি পরিশোধও স্থগিত ছিল। বিশেষ করে ৩ থেকে দুই বছর মেয়াদে ওইসব দেনা পরিশোধ স্থগিত করা হয়। এখন ওইসব দেনা পরিশোধ করতে হচ্ছে। যে কারণে সার্বিকভাবে আমদানি ব্যয় বেশি হচ্ছে। এছাড়া বৈদেশিক ঋণের কিস্তিও এখন পরিশোধ করা হচ্ছে। এসব মিলে বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় বেড়ে গেছে।

বৈদেশিক মুদ্রার আয় বাড়লেও রিজার্ভ কমছে

0
নিউজ ডেস্ক: দেশের বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের প্রধান উৎস রপ্তানি এবং রেমিট্যান্স। এ দুই খাতে আয় বাড়ছে। এদিকে পণ্য আমদানির জন্য এলসি খোলা কমতে শুরু করেছে।...
Advertisement

টুকরো খবর

সর্বশেষ সংবাদ